শুক্রবার, ২৩ ফেব্রুয়ারী ২০২৪, ০৩:২০ অপরাহ্ন

সিরাজগঞ্জে লাম্পি স্কিন রোগে আক্রান্ত গবাদি পশু, বিপাকে খামারি

অনলাইন নিউজ ডেস্ক
  • আপডেট টাইম: বুধবার, ২১ জুন, ২০২৩
  • ১৯০ বার পঠিত

সিরাজগঞ্জে গবাদি পশুর শরীরে লাম্পি স্কিন (এলএসডি) রোগে আক্রান্ত হচ্ছে পশু। এই ভাইরাস ছড়িয়ে পড়ায় খামারিদের কপালে পড়েছে দুশ্চিন্তায় ভাঁজ। রোগটির সুনির্দিষ্ট কোনো প্রতিষেধক না থাকায় দিশেহারা হয়ে পড়েছে কৃষক ও গৃহস্থরা।

বুধবার (২১ জুন) সকালে খোঁজ নিয়ে জানা যায়, তাড়াশ ও রায়গঞ্জ উপজেলায় প্রায় এক হাজারেরও বেশি গরু এ রোগে আক্রান্ত হয়েছে। যদিও এ রোগ ছড়ানোর খবর জানে না প্রাণিসম্পদ বিভাগ। সরকারিভাবে এ বিভাগ থেকে আক্রান্ত গরুকে ভ্যাকসিন ও পরামর্শ দেওয়ার কথা থাকলেও তারা কেউ মাঠে আসেননি বলে দাবি কৃষক ও গৃহস্থদের।

গৃহস্থদের অভিযোগ, রোগটি ব্যাপক আকার ধারণ করলেও মাঠে দেখা যাচ্ছে না প্রাণিসম্পদ বিভাগের কর্মকর্তা-কর্মচারীদের। ফলে গ্রামের কিছু পশু ডাক্তার দিয়ে চলছে চিকিৎসা সেবা। এতে গরু সুস্থ না হয়ে আরও অসুস্থ হয়ে পড়ছে।

পশু চিকিৎসকরা বলছেন, বিরূপ আবহাওয়ার কারণে এ বছর বর্ষা মৌসুমের আগেই লাম্পি স্কিনের সংক্রমণ দেখা দিয়েছে। তবে তা বিক্ষিপ্তভাবে ছড়াচ্ছে।

এ দুই উপজেলার অনেক খামারি ও কৃষক ‘লাম্পি স্কিন’ রোগে আক্রান্ত গরুগুলোকে খুবই কম দামে স্থানীয় কসাইদের নিকট বিক্রি করছে। জেলার তাড়াশ উপজেলার তালম ও বারুহাস ইউনিয়নের অধিকাংশ বাড়িতেই এ রোগ দেখা দিয়েছে। ছড়িয়ে পড়ছে গ্রামের পর গ্রাম। গরু নিয়ে বিপাকে পড়েছে সাধারণ মানুষ। নিত্যপণ্যের ঊর্ধ্বগতির এই পরিস্থিতিতে আক্রান্ত গরুর চিকিৎসা চালাতে হিমশিম খাচ্ছেন মালিকরা।

তালম পদ্মাপাড়া গ্রামের কৃষক আবুল হোসেন জানান, আমার একটি বড় গরুর গলার নিচে ফুলে সারা গায়ে ফোসকা বের হয়েছে। গরুটির অবস্থা খুবই খারাপ। শরীর পচে গর্ত হয়ে যাচ্ছে। সাড়ে ৫ হাজার টাকা খরচ করেও সুস্থ হয়নি গরুটি।

তাড়াশ উপজেলার পদ্মাপাড়া গ্রামের আলী হোসেন জানান, পশু হাসপাতালে এসেও ঘুরে যাচ্ছি ডাক্তার পাচ্ছি না বলে। এই হাসপাতালে এসে কখনো কাউকে পাওয়া যায় না। এখানে নাকি কোনো ডাক্তার নেই। এ অবস্থায় গরু নিয়ে বিপাকে পড়েছি। তিনি আরও বলেন, তালমশাহী পাড়ায় দুই দিনে প্রায় বাড়ির গরু লাম্পি স্কিন রোগে আক্রান্ত হয়েছে।

রায়গঞ্জ উপজেলার চকনূর গ্রামের সবুজ সরকার, কালাম সেখ ও মংলা শেখ জানান, তাদের প্রত্যেকের একটি করে গরু এ রোগে আক্রান্ত হয়েছে। এছাড়া এ গ্রামের সিংহভাগ বাড়িতে এ ভাইরাসটি ছড়িয়ে পড়েছে।

তাড়াশ উপজেলার পল্লী চিকিৎসক আব্দুল মান্নান জানান, গত এক সপ্তাহ যাবত লাম্পি স্কিন রোগের সংক্রমণ দেখা দিয়েছে। প্রতিদিনই কয়েকটি করে এমন রোগে আক্রান্ত গরু দেখছি। তবে এর সুনির্দিষ্ট কোনো চিকিৎসা নেই। লক্ষণ দেখে আক্রান্ত পশুকে পেনিসিলিন, এন্টি হিস্টামিন এবং জ্বর হলে প্যারাসিটামল দিলে কিছুটা উপকার পাওয়া যায়।

সিরাজগঞ্জ জেলা প্রাণিসম্পদ কর্মকর্তা ডা. গৌরাঙ্গ কুমার তালুকদার জানান, এ পর্যন্ত লাম্পি স্কিন রোগে কোনো গরু আক্রান্ত হয়েছে কিনা জানা নেই। তবে ওইসব এলাকায় খোঁজ নেওয়া হবে। আর এ রোগে আক্রান্ত হলে প্রথমেই অসুস্থ গরুটিকে আলাদা করতে হবে। মশারি টাঙিয়ে রাখতে হবে, যাতে মশা বা মাছি গরুর শরীরে না বসে। কেননা মশা বা মাছি অসুস্থ গরুটিকে কামড় দিয়ে যদি সুস্থ কোনো গরুকে কামড়ায় তাহলে সেটিও অসুস্থ হয়ে পড়বে। এ রোগের ফলে মূলত গরু খুবই অসুস্থ হয়ে পড়ে। গায়ে গুটি গুটি ফোড়ার মতো হয়ে পেকে পুঁজ বের হয়। একটি গরু সুস্থ হতে প্রায় দুই মাস সময় লাগে।

নিউজটি শেয়ার করুন..

  • Print
  • উত্তরা নিউজ ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন:
এ জাতীয় আরো খবর..
© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত ২০১৩-২০২৩
themesba-lates1749691102