সাপ

এক ব্যক্তি ২০টি সাপ নিয়ে বিমানে ওঠেন। তিনি জার্মানি থেকে রাশিয়া যাচ্ছিলেন। জার্মানির ডুসেলডর্ফ বিমানবন্দর কর্তৃপক্ষের চোখে ধুলো দিয়েই সাপগুলো নিয়ে বিমানে উঠে পড়েন তিনি। তবে, সমস্যার সম্মুখীন হন যখন তিনি রাশিয়ার মস্কোয় শেরেমেত্তেভো আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরে নামেন।

প্রাথমিক তদন্তে অনুমান করা হচ্ছে, জার্মানি থেকে সাপগুলি নিয়ে সফর করার কাগজপত্র থাকলেও রাশিয়ায় সেগুলি নিয়ে প্রবেশের কোন অনুমতি সেই ব্যক্তির ছিল না। আর সেই কারণে তাকে আটক করা হয় বিমানবন্দরে।

সেখানে দায়িত্বে থাকা পরিবেশ সুরক্ষা দপ্তরের কর্মীরা কোনোভাবে বুঝে যান, ওই ব্যক্তির ব্যাগে সাপ রয়েছে। তারা ওই যাত্রীকে আটক করেন। যদিও ওই যাত্রী সম্পর্কে কোনো তথ্যই বিমানবন্দর কর্তৃপক্ষের পক্ষ থেকে জানানো হয়নি।

তবে, আটক ব্যক্তির দাবি, সাপগুলি বিষধর ছিল না। তাই তাতে কারোর আহত হওয়ার বা ক্ষতি হওয়ার আশঙ্কা ছিল না। রাশিয়ার সেরেমেতয়েভো বিমানবন্দরও ঘটনার সত্যতা স্বীকার করে নিয়েছে। জার্মানির একটি বাজার থেকে তিনি এই নির্বিষ সাপগুলো কিনেছিলেন। জার্মান পুলিশ কিন্তু ওই ব্যক্তিকে বিমানে ওঠার আগে আটকায়নি। ব্যাগে করে সাপ নিয়ে যাওয়ার প্রয়োজনীয় সব কাগজপত্রই নিজের সঙ্গে রেখেছিলেন তিনি। তবে সাপগুলোকে রাশিয়া নিয়ে আসতে কোনো অনুমতি তিনি নেননি। সে কারণেই শেরেমেত্তেভো আন্তর্জাতিক বিমানবন্দর তাকে আটকায়।

আপাতত সাপগুলোকে অন্য এক জায়গায় রাখা হয়েছে। বিশেষজ্ঞরা সেগুলিকে পরীক্ষা করবেন। তবে প্রাথমিক তদন্তে মনে করা হচ্ছে, সাপগুলি বিষাক্ত ছিল না।



উত্তরানিউজ২৪ডটকম / টি/কে

recommend to friends
  • gplus

পাঠকের মন্তব্য

ফেসবুকে আমরা