tg car picture

 

ন্যূনতম মজুরি কাঠামো বৃদ্ধি ও বাস্তবায়নের দাবিতে বুধবার গাজীপুর সিটি করপোরেশনের গাজীপুর মহানগরীর শিল্পনগরী টঙ্গী, নাওজোড়সহ কয়েকটি স্থানে চলমান আন্দোলনরত পোষাক কারখানার শ্রমিক ও বহিরাগতরা বিক্ষোভ, কারখানা ও গাড়ি ভাঙচুর, মহাসড়ক অবরোধ করেছে। উদ্ভূত পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে গাজীপুর জেলা প্রশাসন গাজীপুর নগরীজুড়ে প্রায় ৪ প্লাটুৃন বর্ডার গার্ড বাংলাদেশ (বিজিবি) মোতায়েন করেছে। জেলা প্রশাসক ড. দেওয়ান মুহাম্মদ হুমায়ূন কবীর বিজিবি মোতায়েনের বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন।

গাজীপুর মহানগরীর টঙ্গী পূর্ব থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) মো. কামাল হোসেন জানান, টঙ্গী বিসিক শিল্প নগরী পাগাড় মধ্য পাড়া শশারবাড়ি রোড ''দি দাদা ঢাকা গার্মেন্টস'' কারখানায় সামনে ও তার আশপাশ এলাকায় সকাল থেকে শ্রমিকরা রাস্তায় নেমে বিক্ষোভ শুরু করে। এ সময় উত্তেজিত শ্রমিকরা ইট-পাটকেল নিক্ষেপ করে প্রায় ১০ থেকে ১৫টি কারখানার ভবনের কাঁচ ভাঙচুর করে। এ ছাড়া, গার্মেন্টস কারখানার শ্রমিক ও বহিরাগত বেশ কিছু যুবক তাদের সাথে একত্রিত হয়ে কারখানার ২/৩টি প্রাইভেটকার ও গাড়িতে আগুন ধরিয়ে দেয়। এসময় শ্রমিকর ও বহিরাগতরা মিলে ইপপাটকেল, দ্যা,লাঠি,লেঅহা ও রড দিয়ে পিটিয়ে ব্যবসায়ী ও স্থানীয় আওয়ামীলীগ নেতা খালেদ সাইফুল্লাহ সেলিমের ঢাকা মেট্রো-গ-৩৯-৯২০৫ নম্বরের একটি এলিয়ন সাদা রংয়ের প্রাইভেটকার ভাংচুর রহ আরো অন্য ২টি গাড়ি ব্যাপক ভাংচুর করেছে। এসময় স্থানীয় লোকজন, পুলিশ ও ক্ষতিগ্রস্ত গার্মেন্টস কর্তৃপক্ষ মিলে ওই বহিরাগত যুবকদের ধাওয়া করে।'দি দাদা ঢাকা গার্মেন্টস'' এর মালিক কোরিয়ান মালিক মিস্টার মসলি বলে জানা যায়। এসময় ওই কোম্পানীর ২টি প্রাইভেটকার শ্রমিকবেশী যুবক মনির ও সোহেলের নেতৃত্বে ও ইন্ধনে হামলা ও ভাংচুর চালায়। দুপুরের দিকে পরিস্থিতি স্বাভাবিক হয়।

ব্যবসায়ী ও স্থানীয় আওয়ামীলীগ নেতা খালেদ সাইফুল্লাহ সেলিম অভিযোগ করে জানান.মনির নামে এক প্রভাবশালী ব্যক্তির নির্দেশে জৈনক সোহেলের নেতৃত্বে একদল শ্রমিকবেশী বহিরাগতরা তার গাড়ি সহ মোট ৩টি প্রাইভেটকার ব্যাপক ভাংচুর করেছে। এতে করে প্রায় ৪৫ থেকে ৫০ লাখ টাকার মালামাল ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে তাদের।

টঙ্গী পশ্চিম থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) এমদাদ হোসেন ও স্থানীয়রা আজ  জানায়, বুধবার সকাল ৮টার দিকে শ্রমিকরা কাজে যোগ না দিয়ে সিটি করপোরেশনের গাজীপুরা এলাকায় বিক্ষোভ শুরু করে। এক পর্যায়ে বিক্ষুব্ধ শ্রমিকরা বিভিন্ন কারখানার সামনে গিয়ে শ্রমিকদের বের করে আনার চেষ্টা করে। শ্রমিকরা ইট-পাটকেল নিক্ষেপ করে কয়েকটি পোষাক কারখানা ভবনের গ্লাস ভাঙচুর করে। পরে শ্রমিকরা ঢাকা-ময়মনসিংহ মহাসড়কে অবস্থান নিয়ে বিক্ষোভ করতে থাকে। পুলিশ গিয়ে তাদের মহাসড়ক থেকে সরিয়ে দিলে আধা ঘণ্টা পর যানবাহন চলাচল শুরু হয়।

এদিকে, প্রায় একই সময়ে সিটি করপোরেশনের নাওজোড়, ভোগড়া বাইপাস এলাকায় বিভিন্ন করাখানার শ্রমিকরা মহাসড়কে নেমে আসে। এ সময় তারা পার্শ্ববর্তী বিভিন্ন কারখানার শ্রমিকদের বাইরে বের করে আনার চেষ্টা করে। পুলিশ ঘটনাস্থলে পৌঁছে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনে। উদ্ভূত পরিস্থিতিতে ওই সব এলাকার অধিকাংশ কারখানা বুধবারের জন্য ছুটি ঘোষণা করে কর্তৃপক্ষ। গত চারদিন ধরে ঢাকার মিরপুর, সাভার-আশুলিয়াসহ গাজীপুরের বিভিন্ন স্থানে পোশাক কারখানার শ্রমিকরা বেতন-ভাতা বৃদ্ধির দাবিতে বিক্ষোভ, ভাঙচুর, অগ্নিসংযোগ ও মহাসড়ক অবরোধ করছেন।

গাজীপুরের জেলা প্রশাসক ড. দেওয়ান মুহাম্মদ হুমায়ূন কবীর জানান, পোশাক কারখানার শ্রমিকদের বিশৃঙ্খলা নিয়ন্ত্রণে গাজীপুরের টঙ্গী, গাজীপুরা, হোতাপাড়া, কোনাবাড়ি ও মৌচাক এলাকায় চার প্লাটুন বিজিবি মোতায়েন করা হয়েছে। একজন নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেটের নেতৃত্বে বুধবার সকাল থেকে বিজিবি সদস্যরা দায়িত্ব পালন শুরু করেছে। গাজীপুরে কয়েকদিন ধরে চলা বিভিন্ন পোশাক কারখানার শ্রমিকদের বিক্ষোভ, মহাসড়ক অবরোধ, যানবাহন ভাঙচুর ও অগ্নিসংযোগে ঘটনায় জেলার বিভিন্ন স্থানে বিজিবি মোতায়েন করা হয়েছে। । একজন নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেটের নেতৃত্বে বুধবার  সকাল থেকে বিজিবি সদস্যরা টহল দিচ্ছেন।



উত্তরানিউজ২৪ডটকম / এস,এম,মনির হোসেন জীবন

recommend to friends
  • gplus

পাঠকের মন্তব্য

ফেসবুকে আমরা