asmaul-husna

আসমাউল হুসনা তথা আল্লাহর সুন্দর নামসমূহের প্রতি ঈমান, এসব নামসমূহ থেকে নির্গত সিফাত তথা গুণসমূহের প্রতি ঈমান ও এসব নামের সিফাতের আহকাম ও এর সম্পৃক্ততার প্রতি ঈমান আনা। অতএব, আমরা ঈমান আনব যে, আল্লাহ আলীম তথা মহাজ্ঞানী, সব কিছুর ওপর তাঁর পূর্ণাঙ্গ জ্ঞান রয়েছে। তিনি কাদীর তথা সর্বশক্তিমান, তিনি মহাশক্তির অধিকারী, সব কিছুর ওপর তাঁর শক্তি রয়েছে। আবার তিনি রাহীম তথা পরম দয়ালু, দয়াবান, প্রশস্ত দয়ার অধিকারী, যাকে ইচ্ছা তিনি দয়া করেন। এভাবে বাকী আসমাউল হুসনা তথা আল্লাহর সুন্দরতম নামসমূহ, সিফাতসমূহ ও এর থেকে নির্গত গুণসমূহের প্রতি ঈমান আনয়ন করা।

১. আল্লাহ্‌ -►(আল্লাহ ন্যায়-নীতি, পরোপকার ও আত্মীয়-স্বজনদের দান করার হুকুম দেন  এবং অশ্লীল-নির্লজ্জতা ও দুষ্কৃতি এবং অত্যাচার-বাড়াবাড়ি করতে নিষেধ করেন। তিনি তোমাদের উপদেশ দেন, যাতে তোমরা শিক্ষালাভ করতে পারো ► নাহল:৯০)

 

২. আর রহমান -► পরম দয়াময় -► (রাণী বললো, “হে দরবারীরা! আমার প্রতি একটি বড় গুরুত্বপূর্ণ পত্র নিক্ষেপ করা হয়েছে.. তা সুলাইমানের পক্ষ থেকে এবং আল্লাহ্ রহমানুর রহীমের নামে শুরু করা হয়েছে" ► নামল:৩০)

 

 ৩. আর রহিম -► পরম দয়ালু -► (আর সেদিনটি হবে এমন দিন যেদিন আল্লাহ প্রদত্ত বিজয়ে মুসলমানরা আনন্দে উৎফুল্ল হবে। আল্লাহ যাকে ইচ্ছা সাহায্য করেন এবং তিনি পরাক্রমশালী ও মেহেরবান ► রুম:০৫)

 

 ৪. আল মালিক -► সর্বাধিকারী, বাদশাহ -► (আসমানে যা আছে এবং যমীনে যা আছে তার সবই আল্লাহর তাসবীহ করছে। তিনি বাদশাহ, অতি পবিত্র এবং মহাপরাক্রমশালী ও জ্ঞানময় ► জুময়া:০১)

 

 ৫. আল কুদ্দুস -► নিষ্কলুষ, অতি পবিত্র -► (আসমানে যা আছে এবং যমীনে যা আছে তার সবই আল্লাহর তাসবীহ করছে। তিনি বাদশাহ, অতি পবিত্র এবং মহাপরাক্রমশালী ও জ্ঞানময় ► জুময়া:০১)

 

 ৬. আস সালাম -► শান্তি বিধায়ক -► (আল্লাহ-ই সেই মহান সত্তা যিনি ছাড়া কোন মা’বুদ নেই। তিনি বাদশাহ, অতীব পবিত্র, পূর্ণাঙ্গ শান্তি, নিরাপত্তাদানকারী, হিফাযতকারী,  সবার ওপর বিজয়ী,  শক্তি বলে নিজের নির্দেশ কার্যকরী করতে সক্ষম ।  এবং সবার চেয়ে বড় হয়েই বিরাজমান থাকতে সক্ষম।  আল্লাহ সেই সব শিরক থেকে পবিত্র যা লোকেরা করে থাকে ► হাশর:২৩)

 

 ৭. আল মুমিন -► নিরাপত্তা বিধায়ক -► (আল্লাহ-ই সেই মহান সত্তা যিনি ছাড়া কোন মা’বুদ নেই। তিনি বাদশাহ, অতীব পবিত্র, পূর্ণাঙ্গ শান্তি, নিরাপত্তাদানকারী, হিফাযতকারী,  সবার ওপর বিজয়ী,  শক্তি বলে নিজের নির্দেশ কার্যকরী করতে সক্ষম ।  এবং সবার চেয়ে বড় হয়েই বিরাজমান থাকতে সক্ষম।  আল্লাহ সেই সব শিরক থেকে পবিত্র যা লোকেরা করে থাকে ► হাশর:২৩)

 

 ৮. আল মুহায়মিন -► রক্ষাকারী, হিফাযতকারী -► (আল্লাহ-ই সেই মহান সত্তা যিনি ছাড়া কোন মা’বুদ নেই। তিনি বাদশাহ, অতীব পবিত্র, পূর্ণাঙ্গ শান্তি, নিরাপত্তাদানকারী, হিফাযতকারী,  সবার ওপর বিজয়ী,  শক্তি বলে নিজের নির্দেশ কার্যকরী করতে সক্ষম ।  এবং সবার চেয়ে বড় হয়েই বিরাজমান থাকতে সক্ষম।  আল্লাহ সেই সব শিরক থেকে পবিত্র যা লোকেরা করে থাকে ► হাশর:২৩)

 

 ৯. আল আযিয -► প্রবল পরাক্রমশালী -► (তিনি মায়ের পেটে থাকা অবস্থায় যেভাবে ইচ্ছা তোমাদের আকৃতি গঠন করেন । এই প্রবল পরাক্রান্ত মহাজ্ঞানের অধিকারী সত্তা ছাড়া আর কোন ইলাহ নেই ► ইমরান:০৬)

 

১০. আল জাব্বার -► পরাক্রমশীল -► (আল্লাহ-ই সেই মহান সত্তা যিনি ছাড়া কোন মা’বুদ নেই। তিনি বাদশাহ, অতীব পবিত্র, পূর্ণাঙ্গ শান্তি, নিরাপত্তাদানকারী, হিফাযতকারী,  সবার ওপর বিজয়ী,  শক্তি বলে নিজের নির্দেশ কার্যকরী করতে সক্ষম ।  এবং সবার চেয়ে বড় হয়েই বিরাজমান থাকতে সক্ষম।  আল্লাহ সেই সব শিরক থেকে পবিত্র যা লোকেরা করে থাকে ► হাশর:২৩)

 

 ১১. আল মুতাকাব্বির -► অহংকারের ন্যায্য অধিকারী -► (আল্লাহ-ই সেই মহান সত্তা যিনি ছাড়া কোন মা’বুদ নেই। তিনি বাদশাহ, অতীব পবিত্র, পূর্ণাঙ্গ শান্তি, নিরাপত্তাদানকারী, হিফাযতকারী,  সবার ওপর বিজয়ী,  শক্তি বলে নিজের নির্দেশ কার্যকরী করতে সক্ষম ।  এবং সবার চেয়ে বড় হয়েই বিরাজমান থাকতে সক্ষম।  আল্লাহ সেই সব শিরক থেকে পবিত্র যা লোকেরা করে থাকে ► হাশর:২৩)

 

 ১২. আল খালিক -► সৃষ্টিকর্তা -► (সে আল্লাহই -যিনি তোমাদের জন্য এসব করেছেন- তোমাদের রব, সবকিছুর স্রষ্টা, তিনি ছাড়া আর কোন উপাস্য নেই। তোমাদেরকে কোন্‌ দিকে বিভ্রান্ত করা হচ্ছে ? ► মুমিনুন:৬২)

 

 ১৩. আল বারী -► উন্মেষকারী -► (সেই পরম সত্তা তো আল্লাহ-ই যিনি সৃষ্টির পরিকল্পনাকারী, পরিকল্পনা বাস্তবায়নের র্নিদেশ দানকারী এবং সেই অনুপাতে রূপদানকারী।  উত্তম নামসমূহ তাঁর-ই। আসমান ও যমীনের সবকিছু তাঁর তাসবীহ বা পবিত্রতা বর্ণনা করে চলেছে।  তিনি পরাক্রমশালী ও মহাজ্ঞানী ► হাশর:২৪)

 

 ১৪. আল মুসাওবির -► রূপদানকারী -► (সেই পরম সত্তা তো আল্লাহ-ই যিনি সৃষ্টির পরিকল্পনাকারী, পরিকল্পনা বাস্তবায়নের র্নিদেশ দানকারী এবং সেই অনুপাতে রূপদানকারী।  উত্তম নামসমূহ তাঁর-ই। আসমান ও যমীনের সবকিছু তাঁর তাসবীহ বা পবিত্রতা বর্ণনা করে চলেছে।  তিনি পরাক্রমশালী ও মহাজ্ঞানী ► হাশর:২৪)

 

 ১৫. আল গাফফার -► মহাক্ষমাশীল -► (আমি বলেছি তোমরা নিজেদের প্রতিপালকের কাছে ক্ষমা চাও । নিসন্দেহে তিনি অতিশয় ক্ষমাশীল ► নুহ:১০)

 

 ১৬. আল কাহহার -► মহাপরাক্রান্ত -► (আল্লাহ যদি কাউকে পুত্র হিসেবে গ্রহণ করতে চাইতেন তাহলে তাঁর সৃষ্টিকুলের মধ্যে যাকে ইচ্ছা বাছাই করে নিতেন। তিনি এ থেকে পবিত্র (যে, কেউ তাঁর পুত্র হবে)। তিনি আল্লাহ। তিনি একক ও সবার ওপর বিজয়ী ► যুমার:০৪)

 

 ১৭. আল ওয়াহহাব -► মহাবদান্য -► (এবং বললো, হে আমার রব! আমাকে মাফ করে দাও এবং আমাকে এমন রাজত্ব দান করো যা আমার পরে আর কারো জন্য শোভন হবে না; নিসন্দেহে তুমিই আসল দাতা ► সা'দ:৩৫)

 

 ১৮. আর রাজ্জাক -► জীবিকাদাতা -► (আমি তাদের কাছে কোন রিযিক চাই না কিংবা তারা আমাকে খাওয়াবে তাও চাই না। আল্লাহ নিজেই রিযিকদাতা এবং অত্যন্ত শক্তিধর ও পরাক্রমশালী ► যারিয়াত:৫৮)

 

 ১৯. আল ফাত্তাহ -► মহাবিচারক -► (বলুন, আমাদের পালনকর্তা আমাদেরকে সমবেত করবেন, অতঃপর তিনি আমাদের মধ্যে সঠিকভাবে ফয়সালা করবেন। তিনি ফয়সালাকারী, সর্বজ্ঞ ► সা'বা:২৬)    

 

 ২০. আল আলীম -► মহাজ্ঞানী, সর্বজ্ঞ -► (আর যদি কোথাও তোমাদের স্বামী-স্ত্রীর সম্পর্ক বিগড়ে যাবার আশংকা দেখা দেয় তাহলে পুরুষের আত্মীয়দের মধ্য থেকে একজন সালিশ এবং স্ত্রীর আত্মীয়দের মধ্য থেকে একজন সালিশ নির্ধারণ করে দাও। তারা দুজন  সংশোধন করে নিতে চাইলে আল্লাহ তাদের মধ্যে মীমাংসা ও মিলমিশের পরিবেশ সৃষ্টি করে দেবেন । আল্লাহ সবকিছু জানেন , তিনি সর্বজ্ঞ ► নিসা:৩৫)

 

 ২১. আল কাবিদ -► সংকোচনকারী -► (তোমাদের মধ্যে কে আল্লাহকে ‘করযে হাসানা’ দিতে প্রস্তুত, যাতে আল্লাহ তা কয়েক গুণ বাড়িয়ে তাকে ফেরত দেবেন ? কমাবার ক্ষমতা আল্লাহর আছে, বাড়াবারও এবং তাঁরই দিকে তোমাদের ফিরে যেতে হবে ► বাকারা:২৪৫)

 

 ২২. আল বাসিত -► সম্প্রসারণকারী -► (তোমাদের মধ্যে কে আল্লাহকে ‘করযে হাসানা’ দিতে প্রস্তুত, যাতে আল্লাহ তা কয়েক গুণ বাড়িয়ে তাকে ফেরত দেবেন ? কমাবার ক্ষমতা আল্লাহর আছে, বাড়াবারও এবং তাঁরই দিকে তোমাদের ফিরে যেতে হবে ► বাকারা:২৪৫)

 

 ২৩. আল খাফিদ -► অবনমনকারী -► (...................)

 

 ২৪. আর রাফি -► উন্নয়নকারী -► (...................)

 

 ২৫. আল মুইয্‌য -► সম্মানদাতা -► (বলোঃ হে আল্লাহ ! বিশ্ব –জাহানের মালিক! তুমি যাকে চাও রাষ্ট্রক্ষমতা দান করো এবং যার থেকে চাও রাষ্ট্রক্ষমতা ছিনিয়ে নাও। যাকে চাও মর্যাদা ও ইজ্জত দান করো এবং যাকে চাও লাঞ্জিত ও হেয় করো। কল্যাণ তোমরা হাতেই নিহিত । নিসন্দেহে তুমি সবকিছুর ওপর শক্তিশালী ► ইমরান:২৬)

 

 ২৬. আল মুযিল্ল -► হেয়কারী -► (বলোঃ হে আল্লাহ ! বিশ্ব –জাহানের মালিক! তুমি যাকে চাও রাষ্ট্রক্ষমতা দান করো এবং যার থেকে চাও রাষ্ট্রক্ষমতা ছিনিয়ে নাও। যাকে চাও মর্যাদা ও ইজ্জত দান করো এবং যাকে চাও লাঞ্জিত ও হেয় করো। কল্যাণ তোমরা হাতেই নিহিত । নিসন্দেহে তুমি সবকিছুর ওপর শক্তিশালী ► ইমরান:২৬)

 

 ২৭. আস সামী -► সর্বশ্রোতা -► (কাজেই সত্য বলতে কি, তোমরা তাদেরকে হত্যা করনি বরং আল্লাহই তাদেরকে হত্যা করেছেন। আর তোমরা নিক্ষেপ করনি বরং আল্লাহ নিক্ষেপ করেছেন।  (আর এ কাজে মুমিনদের হাত ব্যবহার করা হয়েছিল) এ জন্য যে আল্লাহ মুমিনদেরকে একটি চমৎকার পরীক্ষার মধ্য দিয়ে সফলতার সাথে পার করে দেবেন। অবশ্যি আল্লাহ সবকিছু শুনেন ও জানেন ► আনফাল:১৭)

 

২৮. আল বাসির -► সর্বদ্রষ্টা -► (আল্লাহ যদি তাঁর সব বান্দাদেরকে অঢেল রিযিক দান করতেন তাহলে তারা পৃথিবীতে বিদ্রোহের তুফান সৃষ্টি করতো। কিন্তু তিনি একটি হিসাব অনুসারে যতটা ইচ্ছ নাযিল করেন। নিশ্চয়ই তিনি তাঁর বান্দাদের সম্পর্কে অবহিত এবং তাদের প্রতি লক্ষ্য রাখেন ► শুরা:২৭)

 

২৯. আল হাকাম -► মিমাংসাকারী, বিচারক -► (আল্লাহ কিয়ামতের দিন তোমাদের মধ্যে সেসব বিষয়ে ফায়সালা করে দেবেন ► হাজ্জ:৬৯)

 

৩০. আল আদল -► ন্যায়নিষ্ঠ -►  (...................)

 

৩১. আল লাতীফ -► সূক্ষ্ণ দক্ষতাসম্পন্ন -► (আর লুকমান ২৭ বলেছিল ) “ হে পুত্র! কোন জিনিস যদি সরিষার দানা পরিমাণও হয় এবং তা লুকিয়ে থাকে পাথরের মধ্যে , আকাশে বা পৃথিবীতে কোথাও , তাহলে আল্লাহ তা বের করে নিয়ে আসবেন। ২৮ তিনি সূক্ষ্মদর্শী এবং সবকিছু জানেন ► লুকমান:১৬)  

 

৩২. আল খাবীর -► সর্বজ্ঞ -► (যদি আল্লাহ তোমার কোন ধরনের ক্ষতি করেন তাহলে তিনি ছাড়া আর কেউ নেই যে তোমাকে ঐ ক্ষতি থেকে বাঁচাতে পারে। আর যদি তিনি তোমার কোন কল্যাণ করেন, তাহলে তিনি সবকিছুর ওপর শক্তিশালী। তিনি নিজের বান্দাদের ওপর পূর্ণ ক্ষমতা রাখেন এবং তিনি জ্ঞানী ও সবকিছু জানেন ► আন’আম:১৮)

 

৩৩. আল হালীম -►সহিষ্ণু -► (তোমরা অনিচ্ছায় যেসব অর্থহীন শপথ করে ফেলো সেগুলোর জন্য আল্লাহ তোমাদের পাকড়াও করবেন না,  কিন্তু আন্তরিকতার সাথে তোমরা যেসব শপথ গ্রহণ করো সেগুলোর জন্য অবশ্যি পাকড়াও করবেন। আল্লাহ বড়ই ক্ষমাশীল ও সহিষ্ণু ► বাকারা:২২৫)

 

৩৪. আল আজীম -► মহিমাময় -►(আসমান ও যমীনে যা আছে সবই তাঁর । তিনি সর্বোন্নত ও মহান ► শুরা:০৪)

 

৩৫. আল গাফুর -► ক্ষমাশীল -► (যারা তোমাদের শত্রু আল্লাহ তাদের মধ্যে ও তোমাদের মধ্যে সম্ভবতঃ বন্ধুত্ব সৃষ্টি করে দেবেন। আল্লাহ সবই করতে পারেন এবং আল্লাহ ক্ষমাশীল, করুণাময়। ধর্মের ব্যাপারে যারা তোমাদের বিরুদ্ধে লড়াই করেনি এবং তোমাদেরকে দেশ থেকে বহিস্কৃত করেনি, তাদের প্রতি সদাচরণ ও ইনসাফ করতে আল্লাহ তোমাদেরকে নিষেধ করেন না। নিশ্চয় আল্লাহ ইনসাফকারীদেরকে ভালবাসেন। আল্লাহ কেবল তাদের সাথে বন্ধুত্ব করতে নিষেধ করেন, যারা ধর্মের ব্যাপারে তোমাদের বিরুদ্ধে যুদ্ধ করেছে, তোমাদেরকে দেশ থেকে বহিস্কৃত করেছে এবং বহিস্কারকার্যে সহায়তা করেছে। যারা তাদের সাথে বন্ধুত্ব করে তারাই জালেম ► মুমতাহিনা:০৭)

 

৩৬. আশ শাকুর -► গুণগ্রাহী -► (যদি তোমরা আল্লাহকে করযে হাসানা দাও তাহলে তিনি তোমাদেরকে তা কয়েকগুণ বাড়িয়ে দেবেন  এবং তোমাদের ভূল-ত্রুটি ক্ষমা করবেন। আল্লাহ সঠিক মূল্যায়ণকারী ও অতিব সহনশীল ► তাগাবুন:১৭)

 

 ৩৭. আল আলী -► অত্যুচ্চ -► (এ সবকিছু এ কারণে যে, আল্লাহই হচ্ছেন সত্য  এবং তাকে বাদ দিয়ে অন্য যেসব জিনিসকে এরা ডাকে তা সবই মিথ্যা, আর ( এ কারণে যে, ) আল্লাহই সমুচ্চ ও শ্রেষ্ঠ ► লুকমান:৩০)

 

৩৮. আল কাবীর -► বিরাট/ মহৎ -► (তিনি অদৃশ্য ও দৃশ্যমান প্রত্যেক জিনিসের জ্ঞান রাখেন। তিনি মহান ও সর্বাবস্থায় সবার ওপর অবস্থান করেন ► রা’দ:০৯)

 

৩৯. আল হাফীজ -► মহা রক্ষক -► (যদি তোমরা মুখ ফিরিয়ে নিতে চাও তাহলে ফিরিয়ে নাও, কিন্তু যে পয়গাম দিয়ে আমাকে তোমাদের কাছে পাঠানো হয়েছিল তা আমি তোমাদের কাছে পৌঁছিয়ে দিয়েছি। এখন আমার রব তোমাদের জায়গায় অন্য জাতিকে বসাবেন এবং তোমরা তাঁর কোনই ক্ষতি করতে পারবে না।  অবশ্যি আমার রব প্রতিটি জিনিসের সংরক্ষক ► হুদ:৫৭)  

 

৪০. আল মুকিত -►আহার্যদাতা -► (...................)

 

৪১. আল হাসীব -► মহা পরিক্ষক -►((এ হচ্ছে আল্লাহর নিয়ম তাদের জন্য) যারা আল্লাহর বাণী পৌঁছিয়ে থাকে, তাঁকেই ভয় করে এবং এক আল্লাহকে ছাড়া আর কাউকে ভয় করে না আর হিসেব গ্রহণের জন্য কেবলমাত্র আল্লাহই যথেষ্ট ► আহযাব:৩৯)

 

৪২. আল জালিল -► প্রতাপশালী -► ( রাসূলুল্লাহ (সাঃ) বলেছেন- মহান ও প্রতাপশালী আল্লাহ বলেন, “হে আদম সন্তান! নিশ্চয়ই বার্ধক্য আমার নূরসমূহের একটি নূর। আমার নূরকে আমি আমার আগুন দিয়ে শাস্তি দিতে লজ্জা বোধ করি ► হাদীসে কুদসী)

 

৪৩. আল কারীম -► মহামান্য -► (হে মানুষ ! কোন জিনিষ তোমাকে তোমার মহান রবের ব্যাপারে ধোঁকায় ফেলে রেখেছে ► ইনফিতার:০৬)

 

৪৪. আর রাকীব -► নিরীক্ষণকারী -► (হে মানব জতি ! তোমাদের রবকে ভয় করো। তিনি তোমাদের সৃষ্টি করেছেন একটি প্রাণ থেকে । আর সেই একই প্রাণ থেকে সৃষ্টি করেছেন তার জোড়া । তারপর তাদের দুজনার থেকে সারা দুনিয়ায় ছড়িয়ে দিয়েছেন বহু পুরুষ ও নারী । ১ সেই আল্লাহকে ভয় করো যার দোহাই দিয়ে তোমরা পরস্পরের কাছ থেকে নিজেদের হক আদায় করে থাকো এবং আত্মীয়তা ও নিকট সম্পর্ক বিনষ্ট করা থেকে বিরত থাকো। নিশ্চিতভাবে জেনে রাখো, আল্লাহ তোমাদের ওপর কড়া নজর রেখেছেন ► নিসা:০১)

 

৪৫. আল মুজিব -► প্রার্থনা গ্রহণকারী -► (আর সামুদের কাছে আমি তাদের ভাই সালেহকে পাঠালাম  সে বললো, “হে আমার কওমের লোকেরা! আল্লাহর বন্দেগী করো। তিনি ছাড়া তোমাদের আর কোন ইলাহ নেই। তিনিই তোমারে যমীন থেকে পয়দা করেছেন এবং এখানেই তোমাদের বসবাস করিয়েছেন।  কাজেই তোমরা তাঁর কাছে ক্ষমা চাও  এবং তাঁর দিকে ফিরে এসো।  নিশ্চয়ই আমার রব নিকটে আছেন তিনি ডাকের জবাব দেন ► হুদ:৬১)

 

৪৬. আল ওয়াসি -► সর্বব্যাপী -► (হে নবী ! তাদের বলে দাও, ‘‘গ্রহন ও মর্যাদা আল্লাহর ইখতিয়ারভুক্ত, যাকে ইচ্ছা তিনি তা দান করেন। তিনি ব্যাপক দৃষ্টির অধিকারী ► ইমরান:৭৩)

 

৪৭. আল হাকীম -►  বিচক্ষণ -► (যমীন ও আসমানসমূহের প্রতিটি জিনিসই আল্লাহর তাসবীহ করেছে।  তিনি মহা পরাক্রমশালী ও অতিশয় বিজ্ঞ ► হাদীদ:০১)

 

৪৮. আল ওয়াদুদ -► প্রেমময় -► (আসলে তোমার রবের পাকড়াও বড় শক্ত। তিনিই প্রথমবার সৃষ্টি করেন আবার তিনিই দ্বিতীয় বার সৃষ্টি করবেন। তিনি ক্ষমাশীল , প্রেমময় .. ► বুরুজ:১৪)

 

৪৯. আল মাজীদ -► গৌরবময় -► (ফেরেশতারা বললোঃ “আল্লাহর হুকুমের ব্যাপারে অবাক হচ্ছো? ৮২ হে ইবরাহীমের গৃহবাসীরা! তোমাদের প্রতি তো রয়েছে আল্লাহর রহমত ও বরকত, আর অবশ্যি আল্লাহ অত্যন্ত প্রশংসাই এবং বড়ই শান শওকতের অধিকারী ► হুদ:৭৩)

 

৫০. আল বাঈছ -► পুনরুথানকারী -► (আর এ (একথার প্রমাণ) যে, কিয়ামতের সময় অবশ্যই আসবে, এতে কোনো প্রকার সন্দেহের অবকাশ নেই এবং নিশ্চয়ই আল্লাহ তাদেরকে উঠাবেন যারা কবরে চলে গেছে ► হাজ্জ:০৭)

 

৫১. আশ শাহীদ -► প্রত্যক্ষকারী -► (আল্লাহই তো সে মহান সত্তা যিনি তাঁর রসূলকে হিদায়াত ও সত্য দীন দিয়ে পাঠিয়েছেন যেন তাকে সমস্ত দীনের ওপর বিজয়ী করে দেন। আর এ বাস্তবতা সম্পর্কে আল্লাহর সাক্ষই যথেষ্ট ► ফাতহ:২৮)

 

৫২. আল হাক্‌ক -► সত্য -► (এসব কিছু এজন্য যে, আল্লাহ সত্য, তিনি মৃতদেরকে জীবিত করেন এবং তিনি সব জিনিসের ওপর শক্তিশালী ► হাজ্জ:০৬)

 

৫৩. আল ওয়াকীল -► তত্ত্বাবধায়ক -► (মূসা বললেন, আমার ও আপনার মধ্যে এই চুক্তি স্থির হল। দু’টি মেয়াদের মধ্য থেকে যে কোন একটি পূর্ণ করলে আমার বিরুদ্ধে কোন অভিযোগ থাকবে না। আমরা যা বলছি, তাতে আল্লাহর উপর ভরসা ►কাসাস:২৮)

 

৫৪. আল কাও’য়্যি -► শক্তিশালী -► (আল্লাহ লিখে দিয়েছেন যে, তিনি এবং তাঁর রসূল অবশ্যই বিজয়ী হবেন।  প্রকৃতপক্ষে আল্লাহ মহা শক্তিমান ও পরাক্রমশালী ► মুজাদালাহ:২১)

 

৫৫. আল মাতীন -► দৃঢ়তা সম্পন্ন -► (আমি তাদের কাছে কোন রিযিক চাই না কিংবা তারা আমাকে খাওয়

উত্তরানিউজ২৪ডটকম / আ/ম

recommend to friends
  • gplus

পাঠকের মন্তব্য

ফেসবুকে আমরা