sahara-khatun-seat-18

উত্তরা পূর্ব ও পশ্চিম উত্তরা, তুরাগ, বিমানবন্দর, খিলক্ষেত, উত্তরখান, দক্ষিণখান ভাটারা থানার (আংশিক) এলাকা নিয়ে গঠিত ঢাকা-১৮ আসন। আয়তন ও ভোটারের দিক থেকে রাজধানীর সবচেয়ে বড় আসন এটি। এছাড়া ঢাকা উত্তর সিটি করপোরেশনের ১ ও ১৭ নম্বর ওয়ার্ডের পাশাপাশি হরিরামপুর ও ডুমনি ইউনিয়নভুক্ত এলাকাটিও ঢাকা-১৮ আসনের অন্তর্ভূক্ত।
সর্বশেষ গত ২০১৪ সালের নির্বাচনে বিএনএফ প্রার্থী আতিকুর রহমান নাজিমকে হারিয়ে টানা দ্বিতীয় দফায় এমপি হন সাহারা খাতুন। এর আগে গত ২০০৮ সালে নির্বাচনে এই আসনটিতে বিএনপি প্রার্থী আজিজুল বারী হেলালকে পরাজিত করে সংসদ সদস্য নির্বাচিত আওয়ামী লীগের সভাপতিম-লীর সদস্য অ্যাডভোকেট সাহারা খাতুন, এমপি।
তবে আসন্ন একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে সাহারার আসন থেকে প্রায় ১৪ জন আওয়ামী লীগের হয়ে দলীয় মনোনয়ন ফরম সংগ্রহ করেছেন। তাঁদের প্রায় সবাই একসময় সাহারা খাতুনের অনুসারী ছিলেন। তবে আওয়ামী লীগ থেকে সাহারা খাতুনকেই মনোনয়ন দেওয়ার সম্ভাবনা প্রকট বলে জানিয়েছেন স্থানীয় নেতা-কর্মীরা।
সাহারা সমর্থক নেতাকর্মীদের দাবি, গত দুই মেয়াদের এমপি থাকতে সাহারা খাতুন এলাকায় ব্যাপক উন্নয়ন করেছেন। কর্মীবান্ধব নেতা হিসেবে নেতাকর্মীদের পাশেও থেকেছেন। প্রধানমন্ত্রী ও আওয়ামী লীগ সভাপতি শেখ হাসিনার আস্থাভাজন হওয়ায় তাকেই টানা তৃতীয়বারের মতো দলীয় প্রার্থী করা হবে- এমনটাও প্রত্যাশা তাদের।
স্থানীয় আওয়ামী লীগের নেতা-কর্মীরা বলছেন, আওয়ামী লীগের রাজনীতিতে এত দিন যাঁরা সাহারা খাতুনের সঙ্গে ছিলেন, তাঁরাই এখন প্রতিপক্ষের ভূমিকায় নেমেছেন। এসব নেতা-কর্মীই তাঁর প্রতিপক্ষ হিসেবে দলীয় মনোনয়ন ফরম সংগ্রহ করেছেন।

এ তালিকায় আছেন যুব মহিলা লীগের কেন্দ্রীয় সভাপতি নাজমা আক্তার, তাঁতী লীগ কেন্দ্রীয় কমিটির যুব ও ক্রীড়াবিষয়ক সম্পাদক জাহিদুল মেম্বার, ঢাকা মহানগর উত্তর আওয়ামী লীগের যুগ্ম স¤পাদক হাবিব হাসান, ঢাকা মহানগর উত্তর আওয়ামী লীগের বন ও পরিবেশবিষয়ক স¤পাদক এস এম তোফাজ্জল হোসেন, সমাজকল্যাণবিষয়ক স¤পাদক এস এম মাহবুব, সহসভাপতি নাজিম উদ্দিন ও মফিজ উদ্দিন ব্যাপারী, সদস্য আবদুল ওয়াসেক ও আনোয়ারুল ইসলাম, উত্তরখান থানা আওয়ামী লীগের সভাপতি কামাল উদ্দিন, ঢাকা জেলা পরিষদ সদস্য যুবরাজ, উত্তরখান থানা আওয়ামী লীগের উপদেষ্টা সাঈদুর রহমান, খিলক্ষেত থানা আওয়ামী লীগের সভাপতি কেরামত আলী দেওয়ান, সাধারণ স¤পাদক আসলাম উদ্দিন। তাঁদের মধ্যে হাবিব হাসান প্রকাশ্যেই সাহারা খাতুনের বিপক্ষে অবস্থান নিয়েছেন।
সাহারা খাতুন বলেন, গত ১০ বছরে এলাকার সার্বিক উন্নয়ন ও জনগণের কল্যাণ করার চেষ্টা করেছেন তিনি। জনগণ ও নেতাকর্মীরা তার সঙ্গে রয়েছেন। দল তাকে আবারও এই আসনে মনোনয়ন দেবে এবং জনগণের সমর্থনে আবারও জিতে আসতে পারবেন বলেই পুরোপুরি আশাবাদী তিনি।



উত্তরানিউজ২৪ডটকম / টি/আর

recommend to friends
  • gplus

পাঠকের মন্তব্য

ফেসবুকে আমরা