Good Helth

অটো বা বাসে করে প্রতিদিন অফিসে যেতেন শাফিউল সাহেব। টাকা খরচ করে সহজেই পৌঁছে যেতেন অফিসে। ইদানিং তাকে দেখা যাচ্ছে সাইকেলে চেপে অফিস যেতে। কেননা তিনি কিছুদিন থেকেই হৃদরোগ আর ডায়াবেটিসের মতো জটিল রোগে ভুগছেন। চিকিৎসকের পরামর্শেই তার এই দ্বিচক্রজানে করে অফিস যাত্রা। বিকল্প নিরিবিলি রাস্তায় সাইক্লিং এর মাধ্যমে এক ধরনের ব্যায়ামও হচ্ছে, আবার সকালের স্নিগ্ধ আবহাওয়ায় প্রশান্তিও মিলছে। 

রোগবালাই থেকে দূরে থাকতে আর বিভিন্ন সমস্যা কমাতে সাইকেল চালানো আসলেই বেশ উপকারী হতে পারে, নারী-পুরুষ উভয়ের জন্যেই। সেটা কীভাবে জেনে নেবো এবার-

কমাতে পারে আপনার হৃদরোগ

কঠিন হৃদরোগ কমাতে সাইকেল চালানো বিশেষ উপকারী। কারণ হৃদরোগীদের জন্য রক্তের স্বাভাবিক প্রবাহ জরুরি। সাইকেল চালালে শরীরে অক্সিজেনের পরিমাণ বেড়ে যায়। ফলে হার্ট ভালো থাকে। সুস্থ মানুষ নিয়মিত সাইকেল চালালে হৃদরোগের ঝুঁকি কমে, আবার হৃদরোগে আক্রান্তরাও এতে উপকার পাবেন।

আপনার ওজন কমিয়ে দেবে

সাইকেল চালানো এক ধরনের ব্যায়াম। এর ফলে আমাদের ওজন কমে। সাইকেল চালানো হলে অধিক ক্যালরি খরচ হয়। এর ফলে বিপাকক্রিয়া বৃদ্ধি পায়। ওজন কমে যায় এবং নিয়ন্ত্রণে থাকে। আর একটু বেশি গতিতে সাইকেল চালালে ক্যালরি একেবারে কমে যাবে। ঘেমে শরীর থেকে ক্ষতিকর পদার্থ বেরিয়ে যাবে।

আয়ু বাড়বে

নিয়মিত সাইক্লিং করলে শরীরের রোগ সংক্রমণের হার কমবে আর আয়ু কমবে। তাই নিজের আয়ু বাড়াতে সকালে বা সন্ধ্যার আগে কমপক্ষে আধাঘণ্টা সাইকেল চালান।

ঘুম ভালো হবে

সুস্থ থাকার জন্য ঘুম জরুরি। সাইকেল চালালে যথেষ্ট পরিশ্রম হয়, তাই রাতে ঘুমটাও ভালো হয়। যাদের পর্যাপ্ত ঘুম হয়না, তাদের নিয়মিত সাইকেল চালালে ঘুমের সমাধান হবে। ঘুমের অন্তত একটা রুটিন হবে।

স্মৃতিশক্তি বাড়বে

গবেষণায় প্রমাণিত যে, সকালে নিয়মিত সাইকেল চালালে স্মৃতিশক্তি বাড়ে। সাইকেল চালালে মস্তিস্কে নতুন কোষ তৈরি হয়। ফলে কোনোকিছু ভালো মনে থাকে। সাধারণত ৩০ বছর পার হলেই স্মৃতিশক্তি কমতে থাকে। তাই শুরু থেকেই একটু সাইকেলে অভ্যস্ত হতে চেষ্টা করুন।

কোলেস্টরল কমায়

সাইকেল চালালে রক্তে খারাপ কোলেস্টেরলের মাত্রা কমতে থাকে। পাশাপাশি ভালো কোলেস্টেরলের মাত্রা বাড়তে থাকে। ফলে রক্তে কোলেস্টেরলের মাত্রা স্বাভাবিক রাখা যায়।

ডায়াবেটিস কমাতে

গবেষণায় প্রমাণিত, ব্যায়াম করলে ডায়াবেটিস মেলাইটিসের হার কমে। যাদের ডায়াবেটিস মেলাইটিস রয়েছে, তারা নিয়মিত ব্যায়াম করলে রক্তের সুগার নিয়ন্ত্রণে থাকে এবং টাইপ-২ ডায়াবেটিস মেলাইটিসের সূত্রপাতকে প্রতিহত করে।

মাংশপেশী গঠন করে

সাতারের পর সাইক্লিংকে সবচেয়ে শ্রেষ্ঠ ব্যায়াম হলো সাইকেল চালানো। সাইক্লিং মাংশপেশীর গঠনে ভালো হাজ করে। শরীরের নিচের অংশের মাংশপেশী যেমন পা, হাঁটু, উরু ইত্যাদি অংশে ভালো ব্যায়াম হয়।

মানসিক স্বাস্থ্য ভালো থাকে

ব্যায়ামের পাশাপাশি সাইক্লিং করলে মস্তিস্কে অক্সিজেন সরবরাহ বাড়ে। এটি আমাদের সুস্থ মানসিকতার জন্য খুবই জরুরি। সাইকেল চালালে মানসিক উদ্বেগ, উৎকণ্ঠা ও চাপ নিমিষেই কমে যেতে পারে। বিশ্বাস না হলে নিজেই চেষ্টা করে দেখুন।



উত্তরানিউজ২৪ডটকম / এ/বি

recommend to friends
  • gplus

পাঠকের মন্তব্য

ফেসবুকে আমরা