sex-lash

বয়স ২৮। দেখতে বেশ সুন্দরী এক নারী। চোখেমুখে আভিজাত্যের ছাপ স্পষ্ট। এই নারীই পুরুষদের খুন করে সেই দেহের সঙ্গে করতো যৌনসংসর্গ। শুধু তাই নয়, মৃতদেহের রক্ত দিয়ে গোসল করতো সে। কখনো আবার পানও করেছে খুন করা ব্যক্তির রক্ত।

এসব কথা নিজ মুখেই স্বীকার করেছে এই যুবতী। বর্তমানে মেক্সিকোর কুখ্যাত কারাগার ‘সেটাস কার্টেলে’ বন্দী করে রাখা হয়েছে এই খুনিকে। গত বছরের নভেম্বর মাসে এই হত্যাকারী মেক্সিকোর পুলিশের কাছে ধরা পড়েছিল। এরপর গত সপ্তাহে সংবাদমাধ্যমের সামনে আনা হয় এই হত্যাকারীকে।

কিশোরী অবস্থায় মাত্র ১৫ বছর বয়সে প্রথম খুন করেছিল নিজের প্রেমিককে। সাংবাদিকদের সামনে খুব স্বাভাবিকভাবেই নিজের খুনের কথা অকপটে স্বীকার করেছে এই যুবতী। তার ভাষায়, ‘খুব কম বয়সেই আমি মাদকাসক্ত হয়ে পড়েছিলাম। ১৫ বছর বয়সে আমি প্রথম গর্ভবতী হই। আমার সন্তানের বাবা ছিল আমার চেয়ে ২০ বছরের বড়।’

সেই সময়ে একজন যৌনকর্মী হিসেবে কাজ করার পাশাপাশি পুলিশ এবং সেনাবাহিনীর গুপ্তচর হিসেবেও কাজ করতো সে। তখন থেকেই পেশাদার খুনি হয়ে ওঠে ওই নারী। এ পর্যন্ত কমপক্ষে ১১ জনকে খুন করেছে সে। সেইসঙ্গে ৪৯ জনের অস্বাভাবিক মৃত্যুর পিছনে তার প্রত্যক্ষ এবং পরোক্ষ সম্পর্ক রয়েছে।

 



উত্তরানিউজ২৪ডটকম / আ/ম

recommend to friends
  • gplus

পাঠকের মন্তব্য

ফেসবুকে আমরা