salon-arm

রুপম সেদিন বাসা থেকে বের হয়েছে চুল কাটার জন্য, তার বয়স ২৫ বছর । চুল কাটার পর একটু ঘাড়-পিঠ মালিশ করে নেয় এবং নাপিত তার ঘাড় ফুটিয়েদেয় ৫-১০ মিনিট। বিনিময়ে রুপম নাপিত কে কিছু বকশিশ দেয়।  ঘাড় মালিশ করার সময় কট করে একটা আওয়াজ হয়, একটু সামান্য ব্যথাও করেউঠেছিল। কিন্তু রুপম অতটা গ্রাহ্য করেনি। দু-এক দিন পর সে ঘাড়ে ব্যথা অনুভব করতে লাগল। ক্রমে ব্যথা বাড়ছে। মা ভাবলেন, হয়তো উল্টাপাল্টাভাবেশোয়ার জন্য ঘাড়ে ব্যথা হয়েছে। মা প্রতিদিন ঘাড়ে গরম সেঁক দিতে শুরু করলেন। কিন্তু কিছুতেই ব্যথা কমছে না; বরং দিনদিন বাড়ছেই। একপর্যায়ে ব্যথাহাতের মধ্য আঙ্গুল পর্যন্ত আসতে শুরু করল। ব্যথার জন্য ঘাড় নাড়ানোও তার জন্য কষ্টকর হয়ে উঠল। শেষ পর্য়ন্ত চিকিৎসকের শরণাপন্ন হলে,চিকিৎসক পরীক্ষা করে বললেন, সারভাইক্যাল ডিস্ক প্রলেপস হয়েছে ।

ঘাড়ের এম আর আই (MRI) ও নার্ভ কনডাকশন স্টাডি পরীক্ষা করে সেটি প্রমাণিত হলো। মেরুদণ্ডের দু্টি হাড়ের মাঝে এক ধরনের ডিস্ক থাকে সেখানথেকে স্মায়ুগুলো বের হয়ে এসে আমাদের হাতে ছড়িয়ে পড়ে। যখন কোন কারণে ওই ডিস্ক সরে যেয়ে স্মায়ুর উপর চাপ দেয় তখন ব্যথা ঘাড় থেকে হাতেরদিকে আসে এটাকে সারভাইক্যাল ইন্টারভার্টিব্রাল ডিস্ক প্রলেপস বলে ।

এক্ষেত্রে চিকিৎসা হল ঔষধের পাশাপাশি সম্পূর্ণ বিশ্রাম অর্থাৎ হাটাচলা বা মুভমেন্ট করা যাবে না, এমন অবস্থায় অর্থোপেডিক্স বা ফিজিওথেরাপিষ্টচিকিৎসকের পরামর্শ অনুযায়ী চলতে হবে। এক্ষেত্রে রোগীর অবস্থা অনুযায়ী ২-৪ সপ্তাহ হাসপাতালে ভর্তি থেকে বা কোন ফিজিওথেরাপি সেন্টারেপ্রতিদিন গিয়ে দিনে ১-২ বার ফিজিওথেরাপি চিকিৎসা নিতে হয়। এটাতে অবস্থার উন্নতি না হলে অপারেশনও লাগতে পারে।

রুপমের এই সমস্যাটি কেন হলো ? খোঁজ নিয়ে জানা গেল, সেলুনের নাপিত ঘাড়- পিঠ মালিশ করে বিভিন্ন ভঙ্গিমায়ে কোন কোন সময় মাথার ওপর চাপদেয়, কখনো ঘাড় বাঁ দিকে ও ডান দিকে কাত করে আবার কখনো জোরে ঘাড় ফুটায়। এসব মালিশ  বা ঘাড় ফুটানো ঘাড়ের জন্য খুবই ক্ষতিকর। এতেঘাড়ের স্মায়ুতে চাপ পড়ার আশঙ্কা থাকে।

পরামর্শঃ
* সেলুনে গিয়ে কখনো ঘাড় বা মাথা মালিশ করাবেন না এবং ঘাড় ফুটাতে দিবেন না।
* ঘাড় কখনো খুব বেশি পেছনে বা পাশে কাত করতে দেবেন না। এতে হঠাৎ করে সারভাইক্যাল ডিস্ক প্রলেপস হয়ে যেতে পারে৷

* যদি ঘাড়ে কোন ব্যাথা পেয়ে থাকেন তাহলে আপনার চিকিৎসকের সাথে যোগাযোগ করুন।
* সামান্য একটু আরাম পেতে নিজের এত বড় ক্ষতি করবেন না।

ডাঃ মোঃ ইব্রাহীম খলিল, পিটি

সি আর এস, ৭৬, গাউসুল আজম রোড, সেক্টর-১৩, উত্তরা।



উত্তরানিউজ২৪ডটকম / জি/তা

recommend to friends
  • gplus

পাঠকের মন্তব্য

ফেসবুকে আমরা