ahsan-ullah-master-general-hospital-tongi

গাজীপুরের শ্রমিক অধ্যূষিত সোনাবান বিবি’র শিল্পনগরী টঙ্গীর মাছিমপুর এলাকায় অবস্থিত ৫০ শষ্যা টঙ্গী সরকারি হাসপাতাল। টঙ্গীর আশের পাশের সরকারি কোন হাসপাতাল না থাকায় শিল্পনগরী টঙ্গীতে বসবাসরত প্রায় ১০ থেকে ১২ লাখ মানুষ তথা স্বল্প আয়ের মানুষের চিকিৎসা সেবার একমাত্র অবলম্বন এই হাসপাতালটি। বর্তমান সরকারের প্রচেষ্টায় এই হাসপাতালকে উন্নতি করণ করে ২৫০ শষ্যায় শহীদ আহসান উল্লাহ মাষ্টার জেনারেল হাসপাতাল রুপান্তরিত করা হয়েছে। ডিজিটাল পদ্ধতিতে বদলে যাচ্ছে টঙ্গীর শহীদ আহসান উল্লাহ মাস্টার জেনারেল হাসপাতালের চিকিৎসা সেবার মান।
অনুসন্ধানে জানা যায়, দীর্ঘ কয়েক যুগ পর বদলে যাচ্ছে টঙ্গীর চিকিৎসা সেবার মান। টঙ্গী ও আশ পাশ এলাকায় সরকারি কোন হাপাতাল না থাকায় স্বল্প আয়ের লাখ লাখ মানুষ বিনা মূল্যে চিকিৎসা সেবা পাবে। নিবির পর্যবেক্ষনের মাধ্যমে নিয়ন্ত্রিত হবে চিকিৎসার সেবা। উন্নত চিকিৎসার জন্য ঢামেক হাসপাতাল কিংবা অন্য কোন হাসপাতালে যেতে হবে না। টঙ্গীর মাছিমপুর এলাকায় অবস্থিত টঙ্গীর ৫০ শষ্যা হাসপাতাল ঘেষে কোটি কোটি ব্যয়ে নতুন করে নির্মিত হয়েছে ৮তলা ভবনের ২৫০ শষ্যা হাসপাতাল। এই হাসপাতালটি চালু হলে চিকিৎসা সেবায় থাকছে নাক, কান, গলা, চক্ষু বিভাগ, কার্ডিওলোজী বিভাগ, এনেসফেসিয়া বিভাগ, হেপাটলোজী বিভাগ, ফরেনসি বিভাগ, আইসিইউ (ইউনিট), অর্থপেডিক, বক্ষব্যাধি, নিউরোলজী, সার্জারী, ক্যান্সার বিভাগ, রক্ত পরিক্ষা সঞ্চালন বিভাগ, রেডিওলোজী ও ইমেজিং বিভাগ, শিশু কিডনি বিভাগ, প্রসূতি ও গাইনী বিভাগ, ইউরোলোজী বিভাগ, প্লাস্টিক সার্জারী বিভাগসহ ২৭টি বিভাগ যোগ হচ্ছে। এছাড়া ২৪ ঘন্টা জরুরী বিভাগের জন্য প্রস্তুত থাকবে বিশেষজ্ঞ টিম। বর্তমানে ২১জন ডাক্তারের পাশাপাশি আরও অর্ধশতাধিক ডাক্তার ও বিশেষজ্ঞদ্ধারা পরিচালিত হবে ২৫০ শষ্যা হাসপাতাল।
এবিষয়ে গাজীপুর মহানগর আওয়ামীলীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক মো: মতিউর রহমান মতি বলেন, টঙ্গীর ৫০শষ্যা হাসপাতালকে ২৫০শষ্যা রুপারিত করার পেছনে সাবেক এমপি আহসান উল্লাহ মাস্টারের ছেলে বর্তমান এমপি আলহাজ মো: জাহিদ আহসান রাসেলের অনেক অবদান রয়েছে। তাই এই হাসপাতালটি গাজীপুরের প্রিয় মানুষ শহীদ আহসান উল্লাহ মাস্টারের নামে নাম করন করা হয়েছে। এছাড়া এই হাসপাতালটি চালু রয়েছে। টঙ্গী ও আশ পাশ এলাকার মানুষের চিকিৎসা ভোগান্তি কমে যাচ্ছে। আর দুরে কোথাও যেতে হবে না। দিন দিন বদলে যাচেছ গাজীপুরের মানুষের চিকিৎসার সেবার মান।
তিনি মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাকে ধন্যবাদ জানিয়ে বলেন , দেশরতœ শেখ হাসিনা গাজীপুরের মানুষের দু:খ সুখের বিষয়টি চিন্তা করে টঙ্গীতে উড়াল সেতু, খেলাধুলার জন্য স্টেডিয়াম মাঠ, টঙ্গীর ৫০ শষ্যা হাসপাতালকে ২৫০ শষ্যায় রুপান্তরিত ও নদীবন্দর নির্মান করে দিয়েছেন। স্থানীয় এমপি জাহিদ আহসান রাসেল প্রধানমন্ত্রীর পক্ষ হয়ে এলাকার মানুষের জন্য কাজ করে যাচ্ছেন। তাই এলাকাবাসীর দীর্ঘ দিনের দাবি ছিল এই হাসপাতলটি যেন আহসান উল্লাহ মাস্টারের নামে হয়, তিনি সেটাও করে দিয়েছেন।
এ ব্যাপরে স্থানীয় এমপি আলহাজ মো.জাহিদ আহসান রাসেল বলেন, টঙ্গী ও গাজীপুরের মানুষের চিকিৎসা সেবার মান পাল্টে দেওয়ার লক্ষে মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা টঙ্গীতে ২৫০ শষ্যা হাসপাতাল নির্মাণ করে দিয়েছেন। এই হাসপাতালটি চালু থাকায় গাজীপুরের মানুষ চিকিৎসার জন্য আর ঢামেক হাসপাতাল যেতে হবে না।
হাসপাতালের আবাসিক মেডিক্যাল অফিসার ডা. মো পারেভজ হোসেন বলেন, ২৫০শষ্যা বিশিষ্ট কার্যক্রম চালু হয়ছে। টঙ্গী, মিরের বাজার পূবাইল, উত্তরা, এয়ারপোর্টসহ বিভিন্ন এলাকার লাখ লাখ মানুষ বিনামূল্যে চিকিৎসা পাবে। আর দুরে কোথাও যেতে হবে না। বর্তমানে শহিদ আহসান উল্লাহ মাষ্টার জেনারেল হাসপাতাল ডিজিটাল পদ্ধতি চালু হয়েছে। মন্ত্রনালয় থেকে বসে দেখা যাবে হাসপাতালে চিকিৎসকরা উপস্থিত আছে কি না।



উত্তরানিউজ২৪ডটকম / এস,এম,মনির হোসেন জীবন

recommend to friends
  • gplus

পাঠকের মন্তব্য

ফেসবুকে আমরা