আইনমন্ত্রী

কোনো সাংবাদিক তার বস্তুনিষ্ঠ প্রতিবেদন প্রকাশের জন্য যদি প্রস্তাবিত ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনের ৩২ ধারায় অভিযুক্ত হন, তবে বিনা পারিশ্রমিকে তার পক্ষে নিজে মামলা লড়বেন বলে জানালেন আইন, বিচার ও সংসদ বিষয়ক মন্ত্রী আনিসুল হক।

মঙ্গলবার ঢাকা রিপোর্টার্স ইউনিটিতে ল’রিপোর্টার্স ফোরাম(এলআরএফ) আয়োজিত ‘মিট দ্য প্রেস’ অনুষ্ঠানে এই কথা জানান তিনি।

আনিসুল হক বলেন, নতুন ডিজিটাল নিরাপত্তা আইন অনুসন্ধানী সাংবাদিকতার জন্য কোনো বাধা হবে না। প্রয়োজনে অনুসন্ধানী সাংবাদিকতা সুরক্ষায় ৩২ ধারায় একটি উপধারা সংযোজন করা হবে।

তিনি বলেন, কোনো তথ্য নেয়া গুপ্তচর বৃত্তি নয়। একটা অপরাধের জন্য মূল বিষয় হলো মেনসরিয়া(অপরাধমূলক মন)। এই আইনে অপরাধগুলোকে অনেক স্পষ্ট করা হয়েছে। ছোট অপরাধের জন্য ন্যূনতম সাজা। বড় অপরাধের জন্য বড় রকম সাজা।

আইনমন্ত্রী বলেন, সাংবাদিকরা অনুসন্ধানী রিপোর্টের জন্য গোপনে তথ্য সংগ্রহ করলে সেটা গুপ্তচরবৃত্তির মধ্যে পড়বে না। গুপ্তচরবৃত্তি তাকেই বলে, যখন কেউ রাষ্ট্র ও সরকারের গোপন তথ্য সরকারের শত্রুর কাছে পাচার করে দেয়। তখন তার বিরুদ্ধে এই আইনে ব্যবস্থা নেয়া হবে।

তিনি বাংলাদেশ ব্যাংকের টাকা চুরির বিষয় উল্লেখ করে বলেন, এই অপরাধীদের সাজা কীভাবে দেব? তাই ডিজিটাল নিরাপত্তা আইন করা হচ্ছে।

এসময় আরও উপস্থিত ছিলেন এলআরএফ’র সভাপতি আশুতোষ সরকার, সাধারণ সম্পাদক আজিজুল ইসলাম পান্নু, সহসভাপতি মাশহুদুল হক, প্রতিষ্ঠাতা সাধারণ সম্পাদক কাজী আবদুল হান্নান।



উত্তরানিউজ২৪ডটকম / বিশেষ প্রতিবেদক

recommend to friends
  • gplus

পাঠকের মন্তব্য

ফেসবুকে আমরা