বিলবোর্ড

মুজাহিদুল ইসলাম সোহেল, নোয়াখালী প্রতিনিধিঃ গত শুক্রবার রাতে বিলবোর্ডের খুঁটির সঙ্গে একটি মালবাহী ট্রাকের সংঘর্ষ হয়। এতে চালক ও হেলপার গুরুতর আহত হন। দুর্ঘটনার স্থল পরিদর্শনে এসে নোয়াখালী পৌরসভার মেয়র সহিদ উল্যাহ খাঁন সোহেল বলেছিলেন, বিলবোর্ডের খুঁটিই যদি দুর্ঘটনার কারণ হয়, তাহলে তা সরিয়ে নেওয়ার ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে। কথা রাখলেন নোয়াখালী পৌরসভার মেয়র সহিদ উল্যাহ খাঁন। তাঁর নির্দেশে শহরের আবদুল মালেক উকিল সড়কের মধ্যখানে (টাউন হল মোড়) স্থাপন করা বিলবোর্ডটি গত রাতে অপসারণ করা হয়েছে।

মেয়র সহিদ উল্যাহ খাঁন মুঠোফোনে বলেন, শহরের সৌন্দর্য রক্ষায় সব ধরনের পদক্ষেপ নেয়া হবে। সড়কের মধ্যে আরও দুটি বড় বিলবোর্ড রয়েছে। সেগুলোও অপসারণ করা হবে। এরই মধ্যে পৌরসভার পক্ষ থেকে সংশ্লিষ্ট বিজ্ঞাপনী প্রতিষ্ঠানকে চুক্তি বাতিলের চিঠি দেওয়া হয়েছে। এদিকে সড়কের মধ্যে স্থাপন করা বিলবোর্ড অপসারণের পর যানবাহনের চালক ও পথচারীরা স্বস্তি প্রকাশ করেছেন। অটোরিকশার চালক জসিম উদ্দিন বলেন, বিলবোর্ডটি না থাকায় এখন টাউন হল মোড়ে গাড়ি চলাচলে দুর্ঘটনার ঝুঁকি নেই। তিনি সেখানে একটি ট্রাফিক আইল্যান্ড স্থাপনের দাবি জানান।

নোয়াখালী জেলা জজকোর্টে আসা এক পথচারী বলেন, টাউন হল মোড়কে নোয়াখালী শহরের প্রাণকেন্দ্র বলা চলে। এখানে একটি ট্রাফিক আইল্যান্ড থাকা দরকার। সেখানে ট্রাফিক পুলিশ দায়িত্ব পালন করলে যানবাহন চলাচলে শৃঙ্খলা থাকবে। জানতে চাইলে নোয়াখালী ট্রাফিক পুলিশের পরিদর্শক (টিআই) সাখাওয়াত হোসেন বলেন, টাউন হলের মোড়সহ গুরুত্বপূর্ণ কিছু স্থানে ট্রাফিক পুলিশ রাস্তার ওপর দাঁড়িয়ে যাতে দায়িত্ব পালন করতে পারে, সে ধরনের স্থায়ী একটা ব্যবস্থা করতে তিনি পৌর মেয়রকে অনুরোধ জানিয়েছেন। সেটি বাস্তবায়িত হলে যানবাহন চলাচলে যেমন শৃঙ্খলা আসবে, তেমনি পথচারীরাও নিরাপদে চলাচল করতে পারবে। প্রায় তিন বছর আগে শহরের টাউন হল মোড়, মোহাম্মদীয়া মোড় ও জামে মসজিদ মোড়ে তিনটি বিশাল আকৃতির বিলবোর্ড স্থাপন করা হয়।



উত্তরানিউজ২৪ডটকম / আর জে

recommend to friends
  • gplus

পাঠকের মন্তব্য

ফেসবুকে আমরা