rukea

বেগম রোকেয়া বিশ্ববিদ্যালয়ে (বেরোবি) বেগম রোকেয়া দিবস-২০১৭ পালিত হয়েছে। শনিবার সকাল সাড়ে ১০টায় দিবসটি উপলক্ষে বিশ্ববিদ্যালয়ের কেন্দ্রীয় ক্যাফেটেরিয়া চত্বর থেকে বর্ণাঢ্য র‌্যালীর মাধ্যমে দিনের কর্মসূচি শুরু হয় এবং আলোচনা অনুষ্ঠানের মাধ্যমে কর্মসূচির সমাপ্তি হয়।

র‌্যালি এবং আলোচনা অনুষ্ঠান ছাড়াও মহীয়সী বেগম রোকেয়ার স্মৃতির প্রতি শ্রদ্ধা জানাতে তাঁর অস্থায়ী প্রতিকৃতিতে পুষ্পার্ঘ অর্পণ করা হয়। এছাড়াও দিবসটি উপলক্ষে একটি জাতীয় এবং স্থানীয় দৈনিকে বিশেষ ক্রোড়পত্র বের করে বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসন।

 আলোচনা সভায় উপাচার্য প্রফেসর ড. নাজমুল আহসান কলিমউল্লাহ বলেন, ‘বেগম রোকেয়া শুধু নারী জাতিকে নয় পিছিয়ে পড়া পুরো সমাজকে এগিয়ে নেয়ার জন্য কাজ করে গেছেন। তাঁর আদর্শকে অনুসরণ করে এদেশের শিক্ষা ব্যবস্থা থেকে অন্য নানা বিষয়ে উন্নয়ন কাজ সাধিত হয়েছে। তাঁর নামে প্রতিষ্ঠিত দেশের প্রথম বিশ্ববিদ্যালয়ের সদস্য হতে পেরে আমরা গর্ব বোধ করি। ’

নারী জাগরণের পথিকৃৎ বেগম রোকেয়ার নামে বিশ্ববিদ্যালয় প্রতিষ্ঠা করায় বর্তমান সরকারকে ধন্যবাদ জানিয়ে তিনি আরো জানান, ইতোমধ্যেই বিশ্ববিদ্যালয় ক্যাম্পাসে বেগম রোকেয়ার স্থায়ী ভাস্কর্য নির্মাণের উদ্যোগ গ্রহণ করা হয়েছে। বিশ্ববিদ্যালয়ের ইতিহাসে এই প্রথম এই দিবসকে কেন্দ্র করে মহামান্য রাষ্ট্রপতি, প্রধানমন্ত্রী, শিক্ষামন্ত্রী, মহিলা ও শিশু বিষয়ক প্রতিমন্ত্রী, এবং বিশ্ববিদ্যালয় মঞ্জুরি কমিশনের মাননীয় চেয়ারম্যানের বাণী সম্বলিত বিশেষ ক্রোড়পত্র জাতীয় ও স্থানীয় পত্রিকায় প্রকাশের আয়োজন করা হয়েছে বলেও জানান তিনি।

এছাড়াও জনসংযোগ, তথ্য ও প্রকাশনা বিভাগের প্রশাসক এবং বাংলা বিভাগের প্রফেসর ড. সরিফা সালোয়া ডিনা এর ‘বর্তমান প্রেক্ষাপটে রোকেয়া-প্রসঙ্গ’ শীর্ষক একটি রচনা ক্রোড়পত্রে স্থান পেয়েছে।

ইংরেজি বিভাগের বিভাগীয় প্রধান এবং জনসংযোগ, তথ্য ও প্রকাশনা বিভাগের সহকারী প্রশাসক আসিফ আল মতিনের সঞ্চালনায় অনুষ্ঠিত আলোচনা সভায় উপাচার্য প্রফেসর ড. নাজমুল আহসান কলিমউল্লাহ এর সভাপতিত্বে দিবসের আলোচনায় অংশ নেন বিজনেস স্টাডিজ অনুষদের ডিন ফেরদৌস রহমান, কলা অনুষদের ডিন প্রফেসর ড. পরিমল চন্দ্র বর্মণ এবং প্রকৌশল ও প্রযুক্তি অনুষদের ডিন ড. আবু কালাম মো. ফরিদ উল ইসলাম।

এছাড়াও অনুষ্ঠানে স্বাগত বক্তব্য রাখেন অনুষ্ঠান আয়োজক কমিটির সদস্য সচিব এবং বহিরাঙ্গন পরিচালক জনাব মোহাম্মদ রফিউল আজম খান নিশার।

 এদিকে র‌্যালীর পর ক্যাফেটেরিয়া প্রাঙ্গণে স্থাপিত বেগম রোকেয়ার অস্থায়ী প্রতিকৃতিতে বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসনের পক্ষ থেকে মাননীয় উপাচার্য পুষ্পার্ঘ অর্পণের পর বিভিন্ন বিভাগ ও সংগঠনের পক্ষ থেকে শ্রদ্ধাঞ্জলি অর্পণ করা হয়।

এছাড়াও দিবসটি উপলক্ষে কেন্দ্রীয় ক্যাফেটেরিয়াতে পিঠাপুলিসহ বিভিন্ন ধরনের খাবারের স্টল দেওয়া হয়। এদিকে রোকেয়া দিবসের বর্ণাঢ্য র‌্যালীতে বিশ্ববিদ্যালয়ের বিভিন্ন বিভাগের শিক্ষক-শিক্ষার্থী, কর্মকর্তা-কর্মচারীসহ অতিথিরা অংশ নেন।



উত্তরানিউজ২৪ডটকম / টি/কে

recommend to friends
  • gplus

পাঠকের মন্তব্য

ফেসবুকে আমরা