বাংলাদেশের ব্যাংক_un

নিউইয়র্কের ফেডারেল রিজার্ভ ব্যাংকে রক্ষিত বাংলাদেশের ব্যাংকের ৮১ মিলিয়ন ইউএস ডলার চুরির ঘটনায় তদন্ত শুরু করেছে ম্যানহাটানে অবস্থিত ইউএস এ্যাটর্নির অফিস। আইন প্রয়োগকারী সংস্থার সূত্র উল্লেখ করে এ তথ্য জানিয়েছে নিউজ ও মতামত ভিত্তিক সাইট দ্য ফিসকাল টাইমস।

অর্থ লেনদেনের আন্তর্জাতিক নেটওয়ার্ক সুইফট ব্যবহার করে ফেব্রুয়ারীতে সংঘটিত এই অর্থ চুরির ঘটনাটির তদন্ত করছেন নিউইয়র্কের দক্ষিণাংশের জেলার ইউএস এ্যাটর্নি প্রিত ভারারা। তবে ভারারার অফিস এই বিষয়ে কোন মন্তব্য করেনি। গণমাধ্যমের সাথে কথা বলতে অনুমোদিত নন বলে সূত্রের পরিচয় গোপন রাখা হয়েছে বলে জানিয়েছেন ওই গণমাধ্যমটি।

সাইবার চুরির পুনরাবৃত্তি ঠেকাতে এফবিআই এবং অন্যান্য সরকারি সংস্থার তৎপরতার মধ্যেই ফেডারেল প্রসিকিউটরের এই তদন্তের খবর জানা গেলো।

বাংলাদেশ ব্যাংকে চুরির প্রেক্ষাপটে গত সপ্তাহে দ্য ফেডারেল রিজার্ভ এবং অন্যান্য আর্থিক নিয়ন্ত্রক প্রতিষ্ঠান ব্যাংকগুলোকে জালিয়াতি করে অর্থ পাচারের বিরুদ্ধে সাইবার নিরাপত্তা পর্যালোচনা করতে বলে। সাইবার চুরির উদ্যোগ নেয়ার লক্ষণ খুঁজে বের করতে গত মাসে এফবিআইয়ের পক্ষ থেকে ব্যাংকগুলোর প্রতি আহবান জানানো হয়।   

ওয়াশিংটনে গত সপ্তাহে একজন এফবিআই কমকর্তা জানান, সংস্থাটি বেশ কয়েকটি বিষয়কে সামনে রেখে তদন্ত কাজ চালাচ্ছে, কিন্তু বাংলাদেশের অপরাধটি কে করেছে তা এখনও বের করতে পারেনি। কোন ব্যাংক থেকে সবচেয়ে বড় এই চুরির ঘটনায় বাংলাদেশ পুলিশ এবং অন্যান্য আইন প্রয়োগকারী সংস্থাও তদন্ত চালাচ্ছে।

এই চুরির বিষয়ে নিউইয়র্ক ফেডারেল রিজাভ ব্যাংকের ব্যবস্থা নিয়েছে বা তাদের ভূমিকা পর্যালোচনায়  যুক্তরাষ্ট্রের একটি কংগ্রেসনাল কমিটি তদন্ত করছে।

চলতি বছরের ফেব্রুয়ারির শুরুর দিকে সুইফট নেটওয়ার্ক ব্যবহার করে বাংলাদেশ ব্যাংকের রিজার্ভ থেকে ৮১ মিলিয়ন ইউএস ডলার ফিলিপাইনের কয়েকটি এ্যাকাউন্টে পাঠায় সাইবার অপরাধীরা। যার অনেকাংশই এখনও উদ্ধার করা যায়নি।



উত্তরানিউজ২৪ডটকম / সারোয়ার জাহান

recommend to friends
  • gplus

পাঠকের মন্তব্য

ফেসবুকে আমরা