জ্বলে উঠলেন লুইস সুয়ারেস, তাদের সামনে দাঁড়াতে পারল না রা

সামারা অ্যারেনায় সোমবার ৩-০ গোলে জিতেছে উরুগুয়ে। প্রথমার্ধে বুদ্ধিদীপ্ত এক ফ্রি-কিকে দলকে এগিয়ে নেন সুয়ারেস। শেষ সময়ে জালের দেখা পান কাভানি। অন্য গোলটি আত্মঘাতী। 

ড্র করলেই গ্রুপ সেরা হত রাশিয়া। তাদের হারিয়ে শীর্ষস্থান পেয়েছে অস্কার তাবারেসের শিষ্যরা।

‘এ’ গ্রুপের অন্য ম্যাচে মিশরকে ২-১ গোলে হারিয়েছে সৌদি আরব।

সামারা অ্যারেনায় শুরু থেকেই রাশিয়াকে চেপে ধরে উরুগুয়ে। স্বাগতিক ডিফেন্ডারদের ব্যস্ত রাখেন সুয়ারেস, কাভানি। গোলের জন্য বেশিক্ষণ অপেক্ষাও করতে হয়নি তাদের।  

দশম মিনিটে দলকে এগিয়ে নেন সুয়ারেস। ডি-বক্সের ঠিক বাইরে থেকে গড়ানো ফ্রি-কিক শটে জাল খুঁজে নেন বার্সেলোনার এই ফরোয়ার্ড। এবারের আসরে তার দ্বিতীয় গোল, সব মিলিয়ে সপ্তম। উরুগুয়ের হয়ে বিশ্বকাপে তার চেয়ে বেশি গোল আছে কেবল অস্কার মিগেসের (৮)।

তিন মিনিট পর সমতা ফেরানোর দারুণ সুযোগ পায় রাশিয়া। ডি বক্স থেকে সরাসরি গোলরক্ষক ফের্নান্দো মুসলেরা বরাবর শট নিয়ে ভালো সুযোগটি নষ্ট করেন দেনিশ চেরিশেভ।

২৩তম মিনিটে চেরিশেভের আত্মঘাতী গোলে ব্যবধান বাড়ায় উরুগুয়ে। ২৫ গজ দূর থেকে দিয়েগো লাক্সালতের শট রাশিয়ান মিডফিল্ডারের পায়ে লেগে দিক পাল্টে জালে জড়ায়।

নিজের জন্মদিনে গোল প্রায় পেয়েও যাচ্ছিলেন রদ্রিগো বেন্তানকুর। ২৯তম মিনিটে তার শট কোনোমতে ফিরিয়ে দেন রাশিয়া গোলরক্ষক ইগর আকিনফিভ।

৯ মিনিটের ব্যবধানে দুটি হলুদ কার্ড দেখে ৩৬তম মিনিটে মাঠ ছাড়েন রাশিয়ান ডিফেন্ডার ইগর স্মলনিকভ।

দশ জনের রাশিয়া দলকে দ্বিতীয়ার্ধে চেপে ধরতে পারেনি উরুগুয়ে। প্রথমার্ধের অনুজ্জ্বল স্বাগতিকরা ঘুরে দাঁড়ায় দ্বিতীয়ার্ধে। তবে গোলের খুব একটা সুযোগ তৈরি করতে পারেনি তারা।

গোলের জন্য কাভানির অপেক্ষা শেষ হয় ম্যাচের শেষ দিকে। কর্নার থেকে দিয়েগো গদিনের হেড গোলরক্ষক ফিরিয়ে দিলে ছুটে গিয়ে ফিরতি বল জালে পাঠান পিএসজি ফরোয়ার্ড।

১৯৩০, ১৯৫০, ১৯৫৪ ও ২০১০ সালের পর এ নিয়ে পঞ্চমবার বিশ্বকাপের গ্রুপ পর্বে নিজেদের জাল অক্ষত রাখল উরুগুয়ে।

মিশর-সৌদি আরব

আগেই বিদায় নিশ্চিত হয়ে যাওয়া দুই দল মিশর ও সৌদি আরব ভলগোগ্রাদে উপহার দেয় জমজমাট এক ম্যাচ।

২২তম মিনিটে মোহামেদ সালাহর গোলে এগিয়ে যায় মিশর। ৪১তম মিনিটে ফাহাদ আলমুয়াল্লাদের পেনাল্টি শট ফিরিয়ে দেন এসাম আল-হাদারি।

সবচেয়ে বেশি বয়সে বিশ্বকাপে খেলার রেকর্ড গড়া এই গোলরক্ষক ফেরাতে পারেননি সালমান আলফারাজের দ্বিতীয় পেনাল্টি শট। প্রথমার্ধের যোগ করা সময়ের এই গোলে সমতা ফেরায় সৌদি আরব।

দ্বিতীয়ার্ধের যোগ করা সময়ে সালেম আলদাওসারির গোলে দারুণ এক জয় নিয়ে মাঠ ছাড়ে এশিয়ার দেশটি।



উত্তরানিউজ২৪ডটকম / গাজী তারেক

recommend to friends
  • gplus

পাঠকের মন্তব্য

ফেসবুকে আমরা