জাতীয়

kader

পত্রিকায় ছবি না ছাপিয়েও আওয়ামী লীগের জনপ্রিয়তা ঢেকে রাখা যাবে না জানিয়ে আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক এবং সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের বলেছেন, আওয়ামী লীগের জনপ্রিয়তা ঘরে ঘরে। আওয়ামী লীগ যেখানেই জনসভা করেছে লক্ষ লক্ষ লোক অংশ নিয়েছে। এটা গণমাধ্যম না দেখলেও জনগণ দেখেছে, দেশবাসী দেখেছে। আজ রবিবার সকালে চট্টগ্রামে কর্ণফুলীতে এক পথসভায় অংশ নিয়ে তিনি এ কথা বলেন।

গণমাধ্যমের সমালোচনা করে তিনি আরও বলেন, এভাবে বস্তুনিষ্ঠ সাংবাদিকতা হয় না। সত্য ঢাকা দিয়ে রাখা যায় না। আমিও গণমাধ্যমের লোক ছিলাম। সাংবাদিকদের আরও দায়িত্বশীল ভূমিকা পালন করতে হয়। 

এ সময় বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীরের সমালোচনা করেন ওবায়দুল কাদের বলেন, দেশবাসীর কাছে তিনি মিথ্যাচার করেছেন। জাতিসংঘ মহাসচিব বিএনপিকে আমন্ত্রণ জানায়নি। এটা জনগণের সঙ্গে প্রতারণা। তারা ভুয়া, প্রতারক। এ দল ক্ষমতায় আসলে দেশে গণতন্ত্র থাকবে না, উন্নয়ন হবে না। দেশের জনগণ বিএনপি থেকে মুখ ফিরিয়ে নিয়েছে। ধানের শীষ এখন পেটের বিষ। 

এ ছাড়াও জাতীয় ঐক্য জোটের সমালোচনা করে আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক বলেন, নেতায় নেতায় জোট করলেন। আওয়ামী লীগের জনপ্রিয়তা সবচেয়ে বেশি। ৬৪ ভাগ জনপ্রিয়তা যে দলের তাদের বাদ দিয়ে জাতীয় ঐক্য হয় না।

বিস্তারিত

আন্তর্জাতিক

Pakistan

পাকিস্তানের শান্তির বার্তাকে কেউ যেন দুর্বলতা মনে না করে।পাকিস্তান পরমাণু শক্তিসম্পন্ন দেশ; সর্বদা যুদ্ধের জন্য প্রস্তুত আমরা৷ শনিবার পাকিস্তানের আইএসপিআর-এর মহাপরিচালক মেজর জেনারেল আসিফ গফুর ভারতকে উদ্দেশ্য করে এই হুঁশিয়ারি বার্তা দিয়েছেন। 

 মেজর জেনারেল আসিফ গফুর

ভারতীয় সেনা প্রধান বিপিন রাওয়াতের বক্তব্যের জবাবে এই মন্তব্য করেছেন তিনি। 

ভারতীয় সেনাপ্রধান জেনারেল বিপিন রাওয়াত শনিবার বলেছেন, পাকিস্তানের সেনা এবং সন্ত্রাসবাদীদের উচিত শিক্ষা দেওয়ার সময় চলে এসেছে৷ 

তিনি বলেন,  আমাদের সেনাবাহিনী জবাব দেওয়ার জন্য প্রস্তুত। সরকারও পাশে রয়েছে৷

প্রসঙ্গত, ভারতের সঙ্গে মুখোমুখি বৈঠক চেয়েছিলেন পাকিস্তানি প্রধানমন্ত্রী ইমরান খান। তিনি দু'দেশের পররাষ্ট্রমন্ত্রীদের বৈঠকের আবেদন জানিয়ে  নরেন্দ্র মোদীকে চিঠি লিখেছিলেন। কিন্তু কাশ্মীরে তিন পুলিশ খুনের প্রতিবাদে সেই বৈঠক বাতিল করে দেয় ভারত। 

ওই বৈঠক বাতিলের প্রেক্ষিতে ভারতের কোনো দূরদর্শিতা নেই বলে মন্তব্য করেন ইমরান খান। 

বিস্তারিত

উত্তরার খবর

মেট্রো রেল

রাজধানীতে চলমান মেট্রো রেল প্রকল্পের কাজের বিষয়ে সরকারের উন্নয়ন প্রকল্প নজরদারির দায়িত্বে থাকা আইএমইডি বলেছে, যে পদ্ধতি অনুসরণ করে মেট্রো রেল প্রকল্প বাস্তবায়ন করা হচ্ছে, তা শুধু জনমানবহীন এলাকায় করা সম্ভব। ঢাকার মতো জনবহুল এলাকায় এভাবে প্রকল্প বাস্তবায়ন করা ঠিক নয়। এই কাজের কারণে সড়কে প্রতিদিন যে অসহনীয় যানজট হচ্ছে এবং মানুষকে সীমাহীন দুর্ভোগ পোহাতে হচ্ছে সে ব্যাপারেও অসন্তোষ জানিয়েছে পরিকল্পনা মন্ত্রণালয়ের বাস্তবায়ন, পরিবীক্ষণ ও মূল্যায়ন বিভাগ (আইএমইডি)।

যুগ্ম সচিব পদমর্যাদার এক কর্মকর্তার নেতৃত্বে আইএমইডির একটি প্রতিনিধিদল প্রকল্প এলাকা সরেজমিন পরিদর্শন শেষে প্রতিবেদন তৈরি করে প্রকল্প বাস্তবায়নকারী সংস্থা ঢাকা ম্যাস ট্রানজিট কম্পানি লিমিটেডের (ডিএমটিসিএল) কাছে পাঠিয়েছে।

চলতি মাসের প্রথম সপ্তাহে পাঠানো ওই প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, উত্তরা থেকে আগারগাঁও পর্যন্ত ১২ কিলোমিটার এলাকায় একযোগে মেট্রো রেলের কাজ শুরু করায় ওই এলাকায় অসহনীয় যানজট তৈরি হচ্ছে।

জানা গেছে, দেশের সব অবকাঠামো উন্নয়ন প্রকল্পে রক্ষণাবেক্ষণ বা সংস্কারের জন্য বরাদ্দ রাখা নিয়ম হলেও মেট্রো রেল প্রকল্পের কারণে ক্ষতিগ্রস্ত সড়ক রক্ষণাবেক্ষণ বা সংস্কারে এক টাকাও রাখা হয়নি। এর ফলে মেট্রো রেল প্রকল্পের কারণে সড়কের যে ক্ষয়ক্ষতি হচ্ছে, তা সংস্কার হচ্ছে না।

উত্তরার দিয়াবাড়ী থেকে মতিঝিলের বাংলাদেশ ব্যাংকের কার্যালয় এলাকা পর্যন্ত ২০ কিলোমিটার দীর্ঘ মেট্রো রেল প্রকল্পটির কাজ ২০২৪ সালে শেষ করার প্রতিশ্রুতি রয়েছে ডিএমটিসিএলের। উত্তরার ১৮ নম্বর সেক্টর থেকে পল্লবী-রোকেয়া সরণি, খামারবাড়ি, ফার্মগেট, সোনারগাঁও হোটেল, শাহবাগ, টিএসসি, দোয়েল চত্বর-তোপখানা রোড হয়ে মেট্রো রেলের রুটটি মতিঝিল যাচ্ছে।

কাজের ধরন নিয়ে আইএমইডি পর্যবেক্ষণ দিয়ে প্রতিবেদনে বলেছে, মিরপুর এলাকাটি আবাসিক হওয়ায় প্রতিদিন কয়েক লাখ মানুষ অফিস-আদালতে যাওয়ার পথে তীব্র যানজটের মুখে পড়ছে। যানজটের কারণে নির্ধারিত সময়ে অফিসে পৌঁছানো সম্ভব হয় না। এ ছাড়া মেট্রো রেল প্রকল্পের কারণে ধুলাবালিও বেড়েছে। এতে মানুষের মধ্যে স্বাস্থ্যঝুঁকি বাড়ছে। রাস্তাঘাটের অবস্থাও নাজুক। অনেক স্থানে খানাখন্দে ভরা।

আইএমইডি বলছে, মেট্রো রেল প্রকল্পটি বাংলাদেশের জন্য একটি স্বপ্নের প্রকল্প এবং এটি বাংলাদেশের প্রথম মেট্রো রেল প্রকল্প। তবে যানজট ও স্বাস্থ্যগত ঝুঁকির কথা বিবেচনা করে প্রকল্প এলাকায় দিনে কাজ করা থেকে বিরত থাকার অনুরোধ করা হয়েছে। রাতের বেলায় কাজ করার পরামর্শ দিয়েছে আইএমইডি। একই সঙ্গে এক  কিলোমিটার করে কাজ শেষ করে সামনে অগ্রসর হওয়ার পরামর্শও দেওয়া হয়েছে মেট্রো রেল কর্তৃপক্ষকে।

জানতে চাইলে আইএমইডির সচিব মফিজুল ইসলাম বলেন, ‘ঢাকার যানজট কমাতে মেট্রো রেল গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করবে। এটি সরকারের একটি মেগা প্রকল্প। তবে এই প্রকল্পের কারণে যাতে তীব্র যানজট তৈরি না হয়, সেটিও দেখার বিষয়।’

আইএমইডির কর্মকর্তারা বলেছেন, দিনের বেলায় মেট্রো রেলের যানবাহন চলাচল, অ্যালাইনমেন্ট বরাবর মোট সড়কের মাঝে ১১ মিটার প্রশস্ততায় ব্যারিকেড দিয়ে পাইলিং ও পিয়ারের কাজ করায় মিরপুর সড়কে তীব্র যানজট তৈরি হচ্ছে। এই যানজট কমাতে ঢাকা মহানগর পুলিশের ট্রাফিক বিভাগ, ঢাকা উত্তর সিটি করপোরেশন ও সংশ্লিষ্ট সংস্থার সঙ্গে সমন্বয় করে জনসাধারণের জন্য বিকল্প পথ ব্যবহারের পরিকল্পনার কথা বলেছে আইএমইডি। এই লক্ষ্যে মেট্রো রেলের অ্যালাইনমেন্ট বরাবর রুট ব্যবহারের যথোপযুক্ত সময় নির্ধারণ এবং জনসচেতনতামূলক সাইন সিগন্যাল ব্যবহারের পরামর্শ দিয়েছে সংস্থাটি।

প্রকল্প বাস্তবায়নকারী সংস্থা ডিএমটিসিএলের একাধিক কর্মকর্তা নাম প্রকাশ না করার শর্তে  বলেছেন, মেট্রো রেলের কাজ দ্রুত মানুষের সামনে দৃশ্যমান করতে চায় সরকার। সে জন্য তাদের ওপর চাপ আছে যত দ্রুত সম্ভব কাজ করার। দ্রুত কাজ করতে গিয়ে এ ধরনের সমস্যা তৈরি হচ্ছে।

আইএমইডির প্রতিবেদনের সূত্র ধরে সরেজমিন ঘুরে দেখা গেছে, মেট্রো রেল প্রকল্পের কারণে আগারগাঁও চার রাস্তার মোড়ে প্রতিদিন তীব্র যানজট তৈরি হচ্ছে। সকাল থেকে মধ্যরাত পর্যন্ত যানজট লেগেই থাকে। অথচ এক বছর আগেও সেখানে তেমন যানজট ছিল না। সাঈদুল ইসলাম নামের একজন বাসযাত্রী কালের কণ্ঠকে বলেন, দুই দিকের রাস্তা সংকুচিত করে ফেলা হয়েছে। তার ওপর রাস্তা খানাখন্দে ভরা। সড়কের এক পাশ দিয়ে শুধু একটি বাস চলতে পারে। এসব কারণে প্রতিদিনই যানজট থাকে।

সরেজমিন ঘুরে দেখা গেছে, আইএমইডির সুপারিশ মানা হচ্ছে না। মিরপুর ১২ নম্বর থেকে আগারগাঁও পর্যন্ত কাজ শেষ না করে নতুন করে ফার্মগেট, শাহবাগ, টিএসসি, প্রেস ক্লাব এলাকায় কাজ শুরু করেছে বাস্তবায়নকারী সংস্থা। আইএমইডি বলছে, ফার্মগেট থেকে মতিঝিল পর্যন্ত সড়কটি পুরো ঢাকা শহরের লাইফলাইন। এ অবস্থায় কন্ট্রাক্ট প্যাকেজ তিন ও চার-এর আদলে যদি একইভাবে পুরো অ্যালাইনমেন্টে একসঙ্গে কাজ শুরু হয়, তাহলে ঢাকায় যানজট প্রকট আকার ধারণ করবে। এ অবস্থায় কন্ট্রাক্ট প্যাকেজ পাঁচ ও ছয়-এর কাজ এক কিলোমিটার করে শেষ করে সামনে অগ্রসর হওয়ার পরামর্শ দিয়েছে আইএমইডি।

এদিকে পরিকল্পনা কমিশনের দেওয়া তথ্য অনুযায়ী, প্রতিটি উন্নয়ন প্রকল্পে ‘মেনটেন্যান্স ডিউরিং কনস্ট্রাকশন’ নামের একটি খাতে যথেষ্ট অর্থ বরাদ্দ রাখা হয়। উদ্দেশ্য থাকে প্রকল্প বাস্তবায়নের সময় কোনো ক্ষয়ক্ষতি হলে সংস্কার করে দেওয়ার। একই সঙ্গে রক্ষণাবেক্ষণের কাজ চালিয়ে যাওয়া। কিন্তু মেট্রো রেল প্রকল্পে এই নামের কোনো খাত রাখা হয়নি। বরাদ্দ না থাকায় মেট্রো রেল প্রকল্প এলাকার ক্ষতিগ্রস্ত সড়ক সংস্কার করা হচ্ছে না। সড়ক সংস্কার নিয়ে সিটি করপোরেশনের সঙ্গে মেট্রো রেল প্রকল্প কর্তৃপক্ষের সঙ্গে চলছে আলাপ-আলোচনা। কিন্তু কোনো সুরাহা হচ্ছে না। 

ঢাকা পরিবহন সমন্বয় কর্তৃপক্ষের (ডিটিসিএ) অতিরিক্ত নির্বাহী পরিচালক জাকির হোসেন মজুমদার কালের কণ্ঠকে বলেন, ‘মেট্রো রেল প্রকল্পে সড়ক সংস্কারে টাকা আছে কি না তা আমার জানা নেই।’ এ বিষয়ে তিনি আর কোনো কথা বলতে রাজি হননি।

জাপান আন্তর্জাতিক সহযোগিতা সংস্থার (জাইকা) অর্থায়নে মেট্রো রেল প্রকল্পটি বাস্তবায়িত হচ্ছে। প্রকল্পটি জাতীয় অর্থনৈতিক পরিষদের নির্বাহী কমিটির (একনেক) অনুমোদন পায় ২০১২ সালের ডিসেম্বরে। ২১ হাজার ৯৮৫ কোটি টাকা ব্যয়ের এই প্রকল্পে জাইকা ঋণ দিচ্ছে ১৬ হাজার ৫৯৫ কোটি টাকা। বাকি পাঁচ হাজার ৩৯০ কোটি টাকা রাষ্ট্রীয় কোষাগার থেকে জোগান দেওয়া হচ্ছে।

২০১৪ সালের ৫ জানুয়ারির জাতীয় নির্বাচন এবং ২০১৬ সালে রাজধানীর হলি আর্টিজানে জঙ্গি হামলার ঘটনায় কিছুটা স্থবিরতা দেখা দিলেও এখন পুরোদমে চলছে মেট্রো রেল প্রকল্পের কাজ।

বিস্তারিত

বিনোদন

মোশাররফ

মোশাররফ করিম ব্যস্ত অভিনয় নিয়ে। জাতীয় চলচ্চিত্র পুরস্কারপ্রাপ্ত চিত্রনায়িকা তমা মির্জার ব্যস্ততা বেশি সিনেমা নিয়ে। এর বাইরে দ্বিতীয়বারের মতো জুটি বেঁধেছেন জনপ্রিয় এই দুই তারকা।

২০১৫ সালে তারা একসঙ্গে অভিনয় করেছিলেন ‘অতিথি’ নামের একটি নাটকে। এবার জুটি বেঁধেছেন একটি বিজ্ঞাপনে। রাজধানীর বিভিন্ন লোকেশনে চিত্রায়িত হয়েছে বাংলালিংকের এ বিজ্ঞাপনটি। এটি নির্মাণ করেছেন আদনান আল রাজীব।

বিজ্ঞাপনের মডেল হওয়া প্রসঙ্গে তমা মির্জা বলেন, বিজ্ঞাপনে এখন খুব বেশি একটা কাজ করা হয় না। ভালো প্রোডাক্ট ও কনসেপ্ট না হলে বিজ্ঞাপনের মডেল হই না। টেলিকমের এ বিজ্ঞাপনের কনসেপ্টটা ভালো লাগায় কাজটা করেছি। এছাড়াও মোশাররফ ভাই ও নির্মাতা আদনান ভাইয়ের সাথে এটা আমার দ্বিতীয় কাজ। কাজটা করে ভালো লেগেছে।

নির্মাতা সূত্রে জানা গেছে, শিগগিরই বিজ্ঞাপনটি বিভিন্ন টিভি চ্যানেলে প্রচার শুরু হবে।

বিস্তারিত

খেলাধুলা

Tamim

এশিয়া কাপের সুপার ফোরের নিজেদের দ্বিতীয় ম্যাচে আজ আফগানিস্তানের বিপক্ষে টস জিতে ব্যাটিংয়ের সিদ্ধান্ত নিয়েছে বাংলাদেশ। বাংলাদেশ দলে দুই পরিবর্তন আনা হয়েছে। এই ম্যাচের মধ্য দিয়ে ওয়ানডেতে অভিষেক হচ্ছে স্পিনার নাজমুল হোসেন অপু। আর মোসাদ্দেক হোসেনের জায়গায় দলে এসেছেন ইমরুল কায়েস।

সুপার ফোরের ম্যাচে আজ হারলেই এবারের আসর থেকে বিদায় নিতে হবে বাংলাদেশকে। তাতে পাকিস্তানের বিপক্ষে সুপার ফোরের সবশেষ ম্যাচটি হয়ে যাবে নিয়মরক্ষার।

বাংলাদেশ একাদশ:

মাশরাফি বিন মর্তুজা (অধিনায়ক), সাকিব আল হাসান, মুশফিকুর রহিম, ইমরুল কায়েস, লিটন দাস, মোহাম্মদ মিঠুন, রুবেল হোসেন, মোস্তাফিজুর রহমান, মাহমুদুল্লাহ রিয়াদ, মেহেদি হাসান মিরাজ এবং নাজমুল হোসেন অপু।

আফগানিস্তান একাদশ:

আসগর আফগান (অধিনায়ক), মোহাম্মদ শাহজাদ (উইকেটরক্ষক), ইসানুল্লাহ জানাত, রহমত শাহ, হাশমতউল্লাহ শাহিদি, শামিউল্লাহ শেনওয়ারি, মোহাম্মদ নবী, গুলবাদিন নাইব, রশিদ খান, মুজীর উর রহমান এবং আফতাব আলম।

বিস্তারিত

বিচিত্র খবর

সাপ

এক ব্যক্তি ২০টি সাপ নিয়ে বিমানে ওঠেন। তিনি জার্মানি থেকে রাশিয়া যাচ্ছিলেন। জার্মানির ডুসেলডর্ফ বিমানবন্দর কর্তৃপক্ষের চোখে ধুলো দিয়েই সাপগুলো নিয়ে বিমানে উঠে পড়েন তিনি। তবে, সমস্যার সম্মুখীন হন যখন তিনি রাশিয়ার মস্কোয় শেরেমেত্তেভো আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরে নামেন।

প্রাথমিক তদন্তে অনুমান করা হচ্ছে, জার্মানি থেকে সাপগুলি নিয়ে সফর করার কাগজপত্র থাকলেও রাশিয়ায় সেগুলি নিয়ে প্রবেশের কোন অনুমতি সেই ব্যক্তির ছিল না। আর সেই কারণে তাকে আটক করা হয় বিমানবন্দরে।

সেখানে দায়িত্বে থাকা পরিবেশ সুরক্ষা দপ্তরের কর্মীরা কোনোভাবে বুঝে যান, ওই ব্যক্তির ব্যাগে সাপ রয়েছে। তারা ওই যাত্রীকে আটক করেন। যদিও ওই যাত্রী সম্পর্কে কোনো তথ্যই বিমানবন্দর কর্তৃপক্ষের পক্ষ থেকে জানানো হয়নি।

তবে, আটক ব্যক্তির দাবি, সাপগুলি বিষধর ছিল না। তাই তাতে কারোর আহত হওয়ার বা ক্ষতি হওয়ার আশঙ্কা ছিল না। রাশিয়ার সেরেমেতয়েভো বিমানবন্দরও ঘটনার সত্যতা স্বীকার করে নিয়েছে। জার্মানির একটি বাজার থেকে তিনি এই নির্বিষ সাপগুলো কিনেছিলেন। জার্মান পুলিশ কিন্তু ওই ব্যক্তিকে বিমানে ওঠার আগে আটকায়নি। ব্যাগে করে সাপ নিয়ে যাওয়ার প্রয়োজনীয় সব কাগজপত্রই নিজের সঙ্গে রেখেছিলেন তিনি। তবে সাপগুলোকে রাশিয়া নিয়ে আসতে কোনো অনুমতি তিনি নেননি। সে কারণেই শেরেমেত্তেভো আন্তর্জাতিক বিমানবন্দর তাকে আটকায়।

আপাতত সাপগুলোকে অন্য এক জায়গায় রাখা হয়েছে। বিশেষজ্ঞরা সেগুলিকে পরীক্ষা করবেন। তবে প্রাথমিক তদন্তে মনে করা হচ্ছে, সাপগুলি বিষাক্ত ছিল না।

বিস্তারিত

ছবিঘর

medialinks MAMS image
image



© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত
উত্তরা নিউজ ২০১৩-২০১৭